পাবনায় কলেজ অধ্যক্ষকে আটকের পর আদালতে সোপর্দ

06পাবনা প্রতিনিধি :বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবিসহ কলেজের গুরত্বপূর্ন কাগজ পত্র পুড়িয়ে ফেলার অভিযোগে অভিযুক্ত চাটমোহর উপজেলার মির্জাপুর ডিগ্রী কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নিমাইচড়া ইউনিয়নের গৌড়িপুর গ্রামের দিরাজতুল্লার ছেলে মোঃ আব্দুল হামিদ কে চাটমোহর থানা পুলিশ আজ শনিবার দুপুরে আটক করে আদালতে সোপর্দ করেছে।

এর আগে গত শুক্রবার কলেজটির গভর্নিং বডির সভাপতি হাজী আব্দুল কাদের উক্ত ঘটনায় থানায় একটি জিডি করেন। জিডির প্রেক্ষিতে পুলিশি তদন্তে সেটি মামলা হওয়ার পরে তাকে আটক করে চাটমোহর থানা পুলিশ।

থানা সূত্রে ও এলাকাবাসী তথ্যে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার কলেজটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ কলেজ মাঠে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবিসহ বেশ কিছু প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র পূড়িয়ে ফেলেন। এমন খবর এলাকায় প্রকাশ হলে কলেজ প্রাঙ্গণে সমবেত হয়ে বিক্ষোভ মিছিল করে এবং অধ্যক্ষের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন বিক্ষুদ্ধ সাধারন মানুষ। শুক্রবার সকালে থানায় সাধারণ ডায়েরী হবার পর বিকেলে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পেয়ে থানা পুলিশ শনিবার সকালে চাটমোহর পৌর এলাকা থেকে অধ্যক্ষকে আটক করে থানা হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। এ ঘটনায় তার সম্পৃক্ততার প্রমান পাওয়ায় তার বিরুদ্ধে মামলা হয় এবং তাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়।

কলেজের সভাপতি আব্দুল কাদের জানান, সম্প্রতি কলেজে অভ্যন্তরীণ অডিট হয়। উক্ত অডিট রিপোর্টে দেখা যায় ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ কলেজের প্রায় ২০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন। উক্ত টাকা আত্মসাতের বিষয়ে কলেজের গভর্নিং বডি জবাব চাইলে সে জবাব না দিয়ে কলেজের গুরত্বপূর্ণ কাগজ গোপনে পুড়িয়ে ফেলেন। যাহাতে ভবিষ্যতে মির্জাপুর কলেজের অপূরণীয় ক্ষতি হবে।

এ ব্যাপারে চাটমোহর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা একরামুল হক জানান, জিজ্ঞাসাবাদ, সংগৃহীত নমুনা এবং তদন্তে তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রাথমিক ভাবে প্রমানীত হওয়ায় মামলা হয়েছে এবং তাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.