রাজধানীতে হত্যা মামলায় ২ মাংস বিক্রেতার মৃত্যুদণ্ড

03এশিয়ানবার্তা: রাজধানীর পল্লবীতে মোবাইল ফোন নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে আনিস নামের এক ব্যক্তিকে হত্যার দায়ে দুজনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। এ ছাড়াও আসামিদের প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেন আদালত।

বুধবার ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের ৪ নম্বরের বিচারক আব্দুর রহমান সরদার এ মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- শমসের ও মো. লালু। তারা দুজনের মাংস বিক্রেতা (কসাই)।

রায় ঘোষণাকালে শমসের আদালতে হাজির ছিলেন তবে লালু পলাতক রয়েছেন।

বিচারক তার রায়ের পর্যবেক্ষণে বলেন, বর্তমান সমাজে একের পর এক বিভিন্ন কারণে নৃশংস ও খুনের ঘটনা ঘটছে। দেশে আইনের শাসন ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠাকল্পে এই মামলার আসামিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান না করলে এ ধরনের নির্মম, নৃশংস ও অগ্রহণযোগ্য, ভয়ঙ্কর হত্যাসহ এ জাতীয় অভিশাপ থেকে সমাজকে মুক্তি দেয়া সম্ভব না।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, মোবাইল ফোন নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে ২০১৩ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৫.৪৫ মিনিটে আনিসকে জরুরি কথা আছে বলে ডেকে নিয়ে যায় মৃত্যুদণ্ডাদেশ প্রাপ্তআসামিরা। এরপর আনিসকে জবাই করে তার লাশ ওয়াপদা বিল্ডিংস্থ মিল্কভিটা মাঠের পশ্চিম পার্শ্বে খালি মাঠে ফেলে রেখে চলে যায়।

ওই ঘটনায় আনিসের ভাই ওমর ফারুক পল্লবী থানায় মামলাটি দায়ের করেন। পল্লবী থানার দুই এসআই শেখ মতিয়ার রহমান ও ইয়াসীন গাজী মামলাটি তদন্ত করে ২০১৪ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

মামলাটির বিচারকার্য চলাকালে আদালত ৯ সাক্ষির সাক্ষ্যগ্রহন করেছেন। হত্যার দায় স্বীকার করে দুই আসামিমী আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করে ওই ট্রাইব্যুনালের অতিরিক্তপাবলিক প্রসিকউটর মাহফুজুর রহমান লিখন এবং আসামিপক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট আবদুর রব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.