অভিনেত্রী থেকে মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতা

05এশিয়ানবার্তা: অভিনেত্রী থেকে মুখ্যমন্ত্রী হয়ে ওঠেন জয়ললিতা। ভারতে দক্ষিণাঞ্চলীয় চলচ্চিত্রের নায়কদের রাজনীতিক হয়ে ওঠার উদাহারণ থাকলেও সিনেমার নায়িকার সফল রজানীতিক হয়ে ওঠার উদাহারণ কেবল জয়ললিতাই।

১৯৬০ ও ৭০’র দশকে দক্ষিণ ভারতের ডাকসাইটে অভিনেত্রী ছিলেন জয়ললিতা। তামিল, তেলেগু এবং কানাডা ভাষায় বহু দর্শকপ্রিয় সিনেমা উপহার দিয়েছেন জয়ললিতা। এরপর জয়ললিতার বহু সিনেমার নায়ক ও গুরু এমজি রামচন্দ্রনের হাত ধরে রাজনীতিতে আসেন জয়ললিতা।

রামচন্দ্রনের মৃত্যুর পর তার বিধবা স্ত্রীর সাথে ক্ষমতার দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন জয়ললিতা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জয়ললিতাকেই তার দল এআইডিএমকে’র নতা-কর্মীরা অবিসংবাদিত নেত্রী হিসেবে মেনে নেয়।

১৯৯১ সালে প্রথম তামিলনাডুর মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন জয়ললিতা। দক্ষিণ ভারতের রাজ্য তামিলনাড়–তে অন্তত পাঁচ দফায় মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। এবং রাজ্যের ইতিহাসে সবচেয়ে জনপ্রিয় রাজনীতিকদের মধ্যে তিনি ছিলেন একজন।

মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন সময়ে জয়ললিতার বিরুদ্ধে একদিকে যেমন একাধিক দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে তেমনি দক্ষ প্রশাসক হিসেবে তিনি সুনাম অর্জন করেছেন।

জয়ললিতা একবার বলেছিলেন, ‘কখনো আমি নিজের আবেগ প্রকাশ্যে দেখাই না। সবার সামনে কখনো রেগে যাইনি বা কাঁদি নি। অথচ রাজনীতিতে আসার আগে আমি এমন ছিলাম না। খুব লাজুক ছিলাম। অপরিচিতদের সামনে আসতে চাইতাম না। আমার কাজ দেখে মানুষ আমাকে খুব কড়া স্বভাবের মনে করে। তবে আমি কখনো নিজে ইচ্ছা করে কড়া হতে চাই নি।’

তামিলনাডু বিধানসভাতেও বিরোধী দলকে রীতিমতো দাবিয়ে রাখতেন জয়ললিতা। তবে ২০১৪ সালে কর্ণাটকের একটি বিশেষ আদালত তার আয়ের সাথে সংগতিহীন সম্পদ অর্জনের পুরনো একটি দুর্নীতির মামলায় তাকে চার বছরের সাজা দিয়েছিল। ভারতের কোন ক্ষমতাসীন মুখ্যমন্ত্রীর জেলে যাবার ঘটনা সেটাই ছিল প্রথম।

এসব মামলা এবং জেলে যাবার ঘটনাতেও তামিলনাডুতে জয়ললিতার জনপ্রিতায় কোন চিড় ধরেনি। গরীবদের ঘরে-ঘরে রঙ্গিন টেলিভিশন, মিক্সার গ্রাইন্ডার মেশিন দেবার প্রকল্প এবং সস্তায় গরীবদের জন্য খাবার ব্যবস্থা করে দেয়া তাকে বিপুল গ্রহণযোগ্যতা এনে দিয়েছিল।

জয়ললিতাকে বহুদিন ধরে দেখেছেন বর্ষীয়ান সংসদ সদস্য গুরুদাস দাসগুপ্ত। তিনি বলছেন জয়াললিতার রাজনৈতিক জীবনে অনেক উত্থান-পতন ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জয়াললিতা ক্ষমতা এবং জনপ্রিয়তার গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে পৌঁছে গিয়েছিলেন। গুরুদাস দাসগুপ্ত বলেন, ‘ওর নিজস্ব একটা ধরণ ছিল। যেটা মানুষের মনকে টানতে পেরেছিল। মানুষ তাকে একজন জনপ্রিয় রাজনীতিবিদ হিসেবে মনে রাখবে।’

ভারতের অনেক পর্যবেক্ষক তাকে ‘তামিলনাড়–র ইন্দিরা গান্ধী’ হিসেবে বর্ণনা করেন। বিতর্ক এবং জনপ্রিয়তা – এ দু’টো বিষয় এ দুই রাজনীতিবিদের জীবনে চিরকাল পাশাপাশি হেঁটেছে।

জয়ললিতা একসময় ভালো গান গাইতেন, নাচতেন এবং সুবক্তাও ছিলেন। তার প্রয়াণে ভারতীয় রাজনীতির সবচেয়ে বর্ণময় এবং প্রভাবশালী চরিত্রদের একজন বিদায় নিলেন। সূত্র: বিবিসি বাংলা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.