1. [email protected] : AK Nannu : AK Nannu
  2. [email protected] : arifulweb :
  3. [email protected] : F Shahjahan : F Shahjahan
  4. [email protected] : Mahbubul Mannan : Mahbubul Mannan
  5. [email protected] : Arif Prodhan : Arif Prodhan
  6. [email protected] : Farjana Sraboni : Farjana Sraboni
সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১০:০১ পূর্বাহ্ন

অসংখ্য বই লিখেছেন মফস্বলের কবি হুমায়ূন রেজা

  • Update Time : শনিবার, ১৫ অক্টোবর, ২০১৬
  • ৭০ Time View

04পোরশা (নওগাঁ) থেকে ডি এম রাশেদ: নাম হুমায়ূন রেজা। বয়স ৯০ বছর। চোখ মুখের চামড়া জড়ে গেছে। বয়সের ভারে সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারেন না। লিখতে গিয়ে মাঝে মধ্যে হাত কাঁপছে। তবুও লেখার নেশা এখনও ছাড়তে পারেননি। অবসর সময়টাকে লেখার মধ্যেই ব্যায় করেন। ১৯২৭ইং সালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার দক্ষিন উজিরপুর গ্রামে জন্মগ্রহন করেন হুমায়ূন রেজা। বাবার নাম আইয়ুব আলী, মা রাহেলা বেগম। বর্তমান ঠিকানা নওগাঁর পোরশা উপজেলার নিতপুর ইউপির চকবিষ-পুর মহাপুকুর গ্রামে।

হুমায়ূন রেজা নামের মফস্বলের এই কবি অসংখ্য কাব্য, মহা-কাব্য, উপন্যাস, গীতি-কাব্য, আধ্যাত্মিক-কাব্য, ঐতিহাসিক-কাব্য, নাটক, দর্শন গ্রন্থ, প্রবন্ধ, ছোট গল্প, আঞ্চলিক উপন্যাস, আলকাপ, আধুনিক গান, দেশত্ববোধক গান, আধ্যাত্মিক গান, ভক্তিমূলক গান সহ অসংখ্য বই লিখেছেন। লিখেছেন জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার কন্যা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে ৫টি বই লিখেছেন তিনি। এগুলো ‘রাজনীতি সার দর্শন মুজিববাদ’, ‘মুজিবনিধন’, ‘শতাব্ধির শ্রেষ্ট নেত্রী শেখ হাসিনা’, ‘শেখ হাসিনা ও বেগম জিয়া’ ও ‘কবির বিলাপ’।

তবে টাকার অভাবে তিনি মাত্র ৪টি বই ছাপাতে বা প্রকাশ করাতে পেরেছেন। তার প্রকাশিত বইগুলো হলো ১৯৯৪সালে ‘মিলন শান্তি তৃপ্তি’ নামের একটি উপন্যাস, ২০১২সালে ‘শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ নেত্রী শেখ হাসিনা’ নামের একটি গীতি কাব্য। একই বছর ‘ডিজিটাল অনন্তকাল’ নামের আধ্যাত্মিক কাব্য’, এবং চলতি বছর ‘ইসলামী দর্শন বিতর্কের শেষ’ নামের একটি দর্শন গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে।

লেখক হুমায়ূন রেজার অপ্রকাশিত বই গুলো হলো, কাব্যের মধ্যে ‘রতœ সোপান’, ‘বল্লরী’, ‘ষোড়শী’, ‘তারার বাসর’, ‘শেষ পথ’। মহা কাব্যের মধ্যে ‘মুজিব নিধন’, উপন্যাস গুলোর মধ্যে ‘প্রতিবেশি’, ‘লুক্তা’, ‘সোনার মানুষ’, ‘বন্ধু নেই’, ‘নারীর মুক্তি’, ‘তেষট্টি বছর’, ‘একটি ছোট্র ভুল’। নাকটগুলোর মধ্যে ‘বিচার’, ‘পুরষ্কার’, ‘অপমান’, ‘সাতবোন’, ‘মানুষ হও’, দর্শনের মধ্যে ‘দর্শন সার-মুজিব বাদ’ প্রবন্ধগুলোর মধ্যে ‘প্রকৃতি কথা বলে’, ‘সত্যের ডাক,’ ‘বাংলার মানুষ’। ব্যঙ্গ উপন্যাস ‘তসলিমা নাসরিন’। ছোট গল্প ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভাষা’, ‘দালাল ছাড়া গতি নাই’। আঞ্চলিক উপন্যাস ‘কালু গোয়াল’ সহ বিভিন্ন ধরনের বই লিখেছেন মফস্বলের কবি হুমায়ন রেজা। টাকার অভাবে তিনি এসব বই প্রকাশিত করাতে পারেন নি।

সম্প্রতি সরেজমিনে উপজেলার নিতপুর চকবিষœপুর গ্রামের মোড়ে গিয়ে দেখা হয় মফস্বলের এ কবি হুমায়ূন রেজার সাথে। সেখানে গিয়ে দেখা গেল একটি ঘরের ভিতর তিনি চেয়ারে বসে দু’পাঁয়ের উপর খাতা রেখে কলম দিয়ে ‘কবির বিলাপ’ নামের একটি গল্প লিখছেন। ঘরে ঢুকে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে তিনি চেয়ার থেকে উঠে দাঁড়ানোর বৃথা চেষ্টা করছিলেন। তাকে ধরে আবারো চেয়ারে বসানো হলো। এসময় তার সাথে কথা বলা হয় প্রায় ২ঘন্টা। তার বলা কথাগুলোতে একটু অষ্পষ্টতা পাওয়া গেলেও মনবল দেখা গেছে বেশ শক্ত।

একান্ত সাক্ষাতকারে হুমায়ূন রেজার সাথে কথা বলে জানা যায়, ১৯৫৩সালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার রানিহাটি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে তিনি মেট্রিকুলেশন (এসএসসি) পাশ করেন। ১৯৫৬সালে একই উপজেলার আদিনা কলেজ থেকে ইন্টারমেডিয়েট (এইচএসসি) পাশ করেন। এবং ১৯৫৯সালে দিনাজপুর এসএন কলেজ থেকে ডিগ্রি পাশ করেন হুমায়ূন রেজা।

ডিগ্রি পাশ করার পর তিনি শিবগঞ্জের নারায়নপুর হাই স্কুলে সহকারী শিক্ষক হিসাবে শিক্ষাগতা শুরু করেন। ১৯৬২সালে বন্যায় পদ্মার ব্যাপক ভাঙ্গনে স্কুলসহ তার বসবাসের একমাত্র ঠিকানা ঘর বাড়ি ভেঙ্গে বিলিন হয়ে যায়। ঐ সময় ঘর বাড়ি পদ্মায় হারিয়ে তিনি স্বপরিবার নিয়ে চলে আসেন নওগাঁর পোরশা উপজেলার নিতপুর চকবিষœুপুর গ্রামের একটি সরকারী (খাস) জমিতে। বর্তমান তিনি ঐ খাস জমিতেই ঘরবাড়ি কওে রয়েছেন। সে সময়ে এখানে এসে বসবাস করার পাশাপাশি নিতপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষাগতাও শুরু করেন তিনি। ১৯৬৪সালে আইয়ুব খাঁ’র শাসনআমলে ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার পদে নির্বাচিত হন। ঐ সময় মেম্বার পদে নির্বাচিত হওয়ায় তিনি চাকরী হারান। ১৯৮৮সালে ইউপি নির্বাচনে নিতপুর ইউপি চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হন।

লেখক হুমায়ূন রেজা জানান, যখন তিনি ১০ম শ্রেণীতে লেখাপড়া করতেন তখন থেকেই তিনি বই লেখার চর্চা করতেন। এবং সে সময়ে তিনি এলাকায় আলকাপ গান করতেন এবং লিখতেন। এলাকায় তখন তিনি আলকাপ গানের মাষ্টার বলে পরিচিত ছিলেন। ইন্টারমিডিয়েট (এইচএসসি) পর্যন্ত তিনি আঞ্চলিক এই আলকাপ গান করেছেন। ডিগ্রি পাশ করার পর পর্যায়ক্রমে শিক্ষগতা, জনপ্রতিনিধিত্ব, টিউশনি করার পাশাপাশি তিনি বই লিখে গেছেন। এবং এ বৃদ্ধ বয়সেও তিনি বই লিখে যাচ্ছেন।

৯০ বছরের বয়স্ক মফস্বলের এই লেখক কবি হিসাবে এখনও কোন সিকৃতি পাননি। তাই কথা বলতে বলতে তিনি অশ্রুসিক্ত কন্ঠে জানান, তাকে যেন কবি হিসাবে সিকৃতি দেওয়া হয়। আর জীবনের শেষ ইচ্ছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে দেখা করার।

একান্ত সাক্ষাতে তিনি আরও বলেন, আমি এ পৃথিবী থেকে বিদায় নেওয়ার পর, আমার লেখাগুলো মানুষের মনে বা অন্তরে থেকে যায়, তাহলেই আমি সার্থক। তাই তার লেখা অপ্রকাশিত বইগুলো প্রকাশ করতে পারলে তিনি সার্থক হবেন বলে জানান মফস্বলের কবি হুমায়ূন রেজা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2016-2020 asianbarta24.com

Developed By Pigeon Soft