1. [email protected] : AK Nannu : AK Nannu
  2. [email protected] : arifulweb :
  3. [email protected] : F Shahjahan : F Shahjahan
  4. [email protected] : Mahbubul Mannan : Mahbubul Mannan
  5. [email protected] : Arif Prodhan : Arif Prodhan
  6. [email protected] : Farjana Sraboni : Farjana Sraboni
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:৩৮ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ বার্তা :
সিরাজগঞ্জ বাঘাবাড়ী বেড়া বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের সরকারি গাছ কাটার হরিলুট ইঞ্জিনিয়ারিং সিলেবাসে রামায়ন মহাভারত থাকলে কুরআন বাইবেল থাকবে না কেনো ? মসজিদের জমিতে শিবলিঙ্গ স্থাপন করে মন্দির বানানোর পাঁয়তারা নিজের হাতেই করুন নিজের জীবন বাঁচানোর পরীক্ষা পরীমনির হাতের মাঝে হৃদয়ের ভাষা খাড়ালেই ভোট দাঁড়ালেই এমপি : রাজনীতিতে নির্বাচনী দৌড়ঝাঁপ শুরু বিশ্বের মুসলিম স্কলারদের অভিনন্দন তালেবানদের : খুলাফায়ে রাশেদার দৃষ্টান্ত স্থাপনের আহবান পাকিস্তানের আগেই তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি ভারতের মহাসমারোহে চলছে ফ্রি ফায়ার পাবজি ভুয়া খবরে লাইক শেয়ার কমেন্ট বেশি যে কারনে ধর্মের নামে ব্যবসা : ইমামতি ছেড়ে ২০ হাজার কোট টাকার মালিক মুফতি রাগীব হাসান

বিএনপিতে ফেরানো হচ্ছে সংস্কারপন্থী নেতাদের

  • Update Time : মঙ্গলবার, ১১ অক্টোবর, ২০১৬
  • ৪৪ Time View

321এশিয়ানবার্তা: অভ্যন্তরীণ ঐক্য বৃদ্ধিতে রাজনীতি থেকে ছিটকে পড়া সংস্কারপন্থী নেতাদের দলে ফেরানোর উদ্যোগ নিয়েছে বিএনপি। ইতোমধ্যেই বেশ ক’জন নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করায় এসেছে সবুজ সংকেত।

মূলত ঐক্য প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে দলের অবস্থান শক্তিশালী করতে চায় বিএনপি। অন্যদিকে অনেকদিন থেকে নিষ্ক্রিয়া থাকা নেতারা চান বিএনপির হয়েই রাজনীতি করতে। যদিও সংস্কারপন্থীদের দলে ফেরানোর প্রক্রিয়া নিয়ে এখনই পরিস্কার করে কিছু বলতে চান না বিএনপি’র দায়িত্বসীন নেতারা।

২০০৭ সালের রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের সময় সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার মাইনাস টু ফর্মুলা বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিয়েছিলো। দলের সংস্কার প্রস্তাব দিয়ে সে উদ্যোগের সারথী ছিলেন তৎকালীন বিএনপি মহাসচিব মান্নান ভূঁইয়াসহ আরো অনেক সংসদ সদস্য। কিন্তু নানা সমীকরণে মাইনাস টু ফর্মুলা ব্যর্থ হয়। আর তখন থেকেই নিষ্ক্রিয় অথবা কোণঠাসা হয়ে পড়ে বিএনপির সংস্কারপস্থীরা।

এরপর থেকেই বিভিন্ন চরাই-উতরাইয়ের মধ্য দিয়ে চলছে বিএনপির রাজনীতি। সংস্কারপস্থীদের দলে ফেরানো নিয়ে আগেও অনেক কথা হলেও তা কার্যকর হয় নি। এবার শীর্ষ পর্যায় থেকেই এসেছে সবুজ সংকেত। তারই অংশ হিসেবে যোগাযোগ করা হয়েছে নরসিংদীর সাবেক সদস্য সরদার সাখাওয়াত হোসেন বকুল, বরিশালের জহিরুদ্দীন স্বপন, যশোরের মফিকুল হাসান তৃপ্তি, বগুড়ার ডাক্তার জিয়াউল হক মোল্লা এবং সুনামগঞ্জের সাবেক সংসদ সদস্য নজির হোসেনের সঙ্গে।

জানা গেছে আগ্রহ থাকলেও বিএনপির আহ্বানে সাড়া দিয়ে আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে ৫ জানুয়ারি নির্বাচনে অংশ নেয় নি তারা। দলের ষষ্ঠ কাউন্সিলেও উপেক্ষা করা হয়েছে সংস্কারপন্থী নেতাদের। তারপরও যত দ্রুত সম্ভব বিএনপির রাজনীতিতে স্বক্রিয় হতে চান তারা। অতীতের তিক্ততা ভুলে দলের ভেতরে ঐক্য প্রতিষ্ঠা করতে চায় বিএনপি। আগামী নির্বাচনে সংস্কারপন্থী জনপ্রিয় নেতাদের মনোনয়ন দিতে চায় দলটি। এরইমধ্যে কোন কোন নেতাকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে তৃণমূলে কাজ করার।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘এই সংকটময় সময়ে একটি জাতীয় ঐক্যের প্রয়োজন আছে। বিশেষ করে জাতীয়বাদি শক্তিতে যারা বিশ্বাসী তাদেরও ঐক্যের প্রয়োজন আছে।’

১/১১’র প্রেক্ষপট উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সে সময়টা ছিলো ভীতিকর, গণতন্ত্রহীন অবস্থা। তাই চাপের মুখে অনেকেই বিভিন্ন ভাবে অনেককেই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করা হয়েছিলো।’

নানা কারণে বিএনপির হাইকমান্ড কিছুটা নমনীয় হলেও সংস্কারপন্থীদের দলে ফেরা খুব সহজ হবে না। কারণ, বিএনপির কট্টরপন্থী বলয়টি মনে করে সংস্কারপন্থীরা দলে স্বক্রিয় হলে খালেদা জিয়া আবারো ষড়যন্ত্রের শিকার হতে পারেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2016-2020 asianbarta24.com

Developed By Pigeon Soft