যে ১০ টি স্বভাবগত সুন্নাত পালন হয়ে যায় আপনার অজান্তে

এশিয়ানবার্তা : ইসলাম একটি পরিপূর্ণ জীবন বিধান। ইসলামে অপূর্ণতা বলতে কোনকিছু নেই । আলোকিত মানুষ গড়ার লক্ষ্যে রাসুল সা. মানুষের জীবনঘনিষ্ঠ প্রতিটি বিষয় নিয়ে বলেছেন। এমনই ১০টি স্বভাবগত কাজ , যা রাসুল না. নিয়মিত করতেন এবং তার সুন্নাহর অন্তর্ভুক্ত।

এ বিষয়ে হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ১০টি কাজ স্বভাবগত-
১.  মোচ বা গোঁফ কাটা;
২. (হাত ও পায়ের) নখ কাটা;
৩.  অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ ধুয়ে পরিচ্ছন্ন রাখা;
৪.  দাড়ি লম্বা করা;
৫. (নিয়মিত) মেসওয়াক করা;
৬.  নাক (পানি দিয়ে) পরিস্কার করা;
৭.  বগলের (নিচের) পশম উপড়ে ফেলা;
৮ . নাভির নিচের পশম কামানো;
৯.  পেশাবের পর পানি দ্বারা পবিত্রতা অর্জন করা এবং শৌচকর্ম করা।
১০. মুসআব ইবনে শায়ার বলেন, আমি দশম কথাটি ভুলে গেছি সম্ভবত তা হলো কুলি করা।
(নাসাঈ)

উল্লেখিত কাজগুলো মানুষের দৈনন্দিন জীবনকে পাক-পবিত্র ও সুন্দর করে। যা প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের দৃষ্টি থেকে বাদ যায়নি।

এই ১০টি কাজগুলো সম্পর্কে হাদিসের শিক্ষা এবং পদ্ধতি হলো – 

১.  গোঁফ এতটুকু খাটো করা; যাতে পানি খাওয়ার সময় গোঁফে পানি না লাগে।
২. হাত ও পায়ের নখ অন্তত্ব প্রতি সপ্তাহে কাটা; কারণ হাত দিয়ে মানুষ খাওয়া-দাওয়াসহ পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার অনেক কাজ করে থাকে। নখ না কাটলে নখের ভেতরে ময়লা জমে। নখের ভেতরের ময়লা মানুষের জন্য ক্ষতিকর।
৩. শরীরের যে সব জায়গায় পানি পৌঁছা সহজ নয় তা ভালোভাবে হাত দ্বারা ঘঁষে-মেঝে পানি পৌছানো আবশ্যক। কারণ শরীরে কোনো অঙ্গে পানি না পৌছলে ফরজ গোসল আদায় হবে না।
৪.  দাড়ি কমপক্ষে এক মুষ্টি পরিমাণ লম্বা রাখা।
৫. নাক পরিষ্কার রাখা।
৬.  প্রত্যেক নামাজের আগে অজুর সময় মেসওয়াক করার ফজিলত অনেক বেশি। মুখের দুর্গন্ধ থেকে হেফাজত থাকতে খাওয়া-দাওয়া, ওজু ও গোসলের আগে মেসওয়াক করা প্রিয়নবির উত্তম আমল।
৭.  বগলের নিচের অযাচিত পশম উপড়ে ফেলা।
৮.  নাভির নিচের পশম ৪০ দিন অতিবাহিত হওয়ার আগেই পরিষ্কার করা।
৯.  পেশাব ও সৌচকার্যে ঢিলা-কুলুপ ব্যবহারের পর পানি ব্যবহার দ্বারা উত্তমরূপে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অর্জন করা।

উল্লেখিত কাজগুলো মানুষের জন্য ফিতরাত বা স্বভাবগত। যা ইসলাম পূর্ব অন্যান্য শরিয়তের অংশ ছিল। সব নবি-রাসুলগণই এ স্বভাবগত বিষয়গুলোর শিক্ষা দিয়ে গেছেন।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে হাদিসে উল্লেখিত বিষয়গুলো যথাযথভাবে পালন করার তাওফিক দান করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.