1. [email protected] : AK Nannu : AK Nannu
  2. [email protected] : arifulweb :
  3. [email protected] : F Shahjahan : F Shahjahan
  4. [email protected] : Mahbubul Mannan : Mahbubul Mannan
  5. [email protected] : namecheap :
  6. [email protected] : Arif Prodhan : Arif Prodhan
  7. [email protected] : RM Rey : RM Rey
  8. [email protected] : Farjana Sraboni : Farjana Sraboni
বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ০৩:২৮ অপরাহ্ন
সর্বশেষ বার্তা :
সিরাজগঞ্জ বাঘাবাড়ী বেড়া বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের সরকারি গাছ কাটার হরিলুট রোশানকে নিয়ে ইকবালের তিন ছবি ইতিহাসের পাতায় সলঙ্গা বিদ্রোহের মহানায়ক মাওলানা আব্দুর রশীদ তর্কবাগীশ বানেশ্বরে শীতার্তদের মাঝে এনসিসি ব্যাংকের কম্বল বিতরণ নতুন তিন সিনেমায় সাইমন-মাহি জুটি পুঠিয়ায় ট্রাক্টর ও কারের মুখোমুখি সংঘর্ষে গুরুতর জখম দুইজন ফুলবাড়ীতে কর্মজিবী আদিবাসীদের মাঝে আর্থিক অনুদানের চেক প্রদান দৌলতদিয়ায়-পাটুরিয়া ফেরি চলাচল বন্ধ, মাঝ নদীতে ৪ ফেরি রাজবাড়ী পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ডে প্রতিবছর কোটি টাকার উন্নয়ন করা হবে -প্রার্থী পলাশ ঘন কুয়ায় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ফেরি ও লঞ্চ চলাচল আবারও বন্ধ নলডাঙ্গায় ট্রেনের ধাক্কায় আহত নারীর মৃত্যু

সহি তুফাননামা : যে ঝড়ে ‘তুফান’ থামে

  • Update Time : সোমবার, ৩১ জুলাই, ২০১৭
  • ১৬ Time View

এশিয়ানবার্তা এক্সক্লুসিভ : মগের মুল্লুকে অবৈধ ক্ষমতার চাদরে মোড়া দানবের ডেরায় জন্ম বগুড়ার তুফান সরকারের।ক্ষমতার দাপটে বেপরোয়া হয়ে ওঠা  শ্রমিক লীগের নেতা তুফান সরকারের গডফাদার দখল করে নেয় ‘মগের মুল্লুকের’বগুড়া পরগনা ।সেই পরগনায় ‘হরিলুট কালচারে’ বেড়ে ওঠা তুফান সরকার ওরেফ ব্যাটারী তুফানের ভাগে দেয়া হয় ।

ব্যাটারী চালিত রিকশার সাম্রাজ্য পেয়েই ‘লাটসাহেব’ হয়ে ওঠেন তুফান সরকার। এই সাম্রাজ্যে তুফানের পাসপোর্ট ভিসা ছাড়া কেউ প্রবেশ করলেই একদিনের জরিমানা দিতে হয় আড়াই হাজার টাকা।  এভাবেই দিন আনা দিন খাওয়া,নুন আনলে পান্তা ফুরানো, রিকশা-ভ্যান চালকদের পকেট থেকে কেড়ে নেয়া দৈনিক তিন লাখ টাকা। সেই টাকায় ঝলমল করে উঠতে থাকে ‘তুফানের খোয়াড়’। টাকার গরমে তেজ বােড়তে থাকে তুফানের । বাড়তে থাকে জৌলুস আর জোশ । গ্যাংলিডার তুফান হয়ে ওঠে গ্যাং রেপিস্ট।

বগুড়া শহরের বাদুড় তলায় চামড়া পট্টিতে জন্ম তুফান সরকারের। বড়ভাাই ‘চামড়া ছেলা’ মতিনের হাত ধরে মগেরমুল্লকে অভিষেক ঘটে তুফানের। এরপর তুফান সাম্রাজ্যের গোড়াপত্তন হয় আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর। বগুড়ায় চিরস্থায়ী জুয়ার আসর দিয়ে তার অবৈধ আয়ের মহড়া শুরু হয় । এরপর মাদক ব্যবসা। একপর্যায়ে তিনি বগুড়ার মাদক সাম্রাজ্যেরও নিয়ন্ত্রক হয়ে যান। প্রশাসন সব জানলেও মগেরমুল্লুকের দানবের ভয়ে কেউ মাথা তুলে তাকানোর সাহস পায়নি।

অবৈধ চাঁদার নাম হয়ে যায় ‘তুফানী’

বড় ভাই ‘চামড়া ছেলা মতিনের’ সুবাদে দলবাজিতে পাকা খেলোয়াড় হয়ে ওঠে তুফান। একসময়  শহর শ্রমিক লীগের সভাপতিও হয়ে যায়। এরপর শুরু হয় ব্যাটারিচালিত রিকশার লাইসেন্স ব্যবসা। ব্যাটারিচালিত প্রতিটি রিকশার রোডপারমিট নিতে  ২ হাজার ৫০০ টাকা ‘তুফানী’ দিতে হয় তাকে। বগুড়া শহরের ২০ হাজার ব্যাটরিচালিত রিকশা থেকে এককালীন তুফানী আসে ৫ কোটি টাকা।

আড়াই হাজার টাকা তুফানী দিয়ে রাস্তায় রিকশা নামানোর পর এসব রিকশা থেকে দৈনিক ৩০ টাকা করে ‘তুফানী’ কালেকশন হতে থাকে । এতে গড়ে প্রতিদিন  তিন লাখ টাকা ‘তুফানী’ জমা হতে থাকে তুফানের দরবারে । দেখতে দেখতে কোটিপতি হয়ে যান তুফান সরকার। তুফানের আশকারা পেয়ে রিকশাওয়ালারাও ১০ টাকার ভাড়া ২০ টাকায় বাড়িয়ে পাবলিকের বারোটা বাজাতে থাকেন। মগেরমুল্লুকের তুফান সাম্রাজে সবকিছুই যেন ঘুরতে থাকে তুফানের তোড়ে। অসহায় অথর্ব মেয়রের চিপায় পড়ে ‘চিড়েচ্যাপ্টা’ হতে থাকেন বগুড়া পৌরসভার নিম্মবিত্ত নাদানেরা।

যে ঝড়ে তুফান থামে

নিয়মিত ধর্ষন করাটাও গা সওয়া হয়ে উঠেছিল তুফানের। গ্যাংরেপেও সমস্যা ছিলো  নপা। কিন্ত আটকে যায় মা মেয়েকে ন্যাড়া করতে গিয়ে। ধর্ষকের বউ যখন ধর্ষক স্বামীর সহযোগী হয়ে যায়,শালি শাশুড়ী যখন ধর্ষিতাকে নিয়ে চিয়ার্স করে,তখনই ওঠে এক গায়েবী ঝড়। যে ঝড়ে তুফান থামে।

তুফাননামার ক্লাইম্যাক্স

সারাদেশে চাঞ্চল্যকর ধর্ষক তুফানের শ্যালিকা ও বগুড়া পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুমকী,শাশুড়ী রুমি বেগম আর স্ত্রী আশা সরকার ধর্ষিতা মেয়ে আর তার মাকে ন্যাড়া করে দিয়েছিলেন। ধর্ষিতা ও তার মাকে পিটিয়ে নির্যাতনের পর মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার ঘটনার মুল হোতা এই তিনজনের দুইজনকে রোববার রাতে পুলিশ গ্রেফতার করেছে পাবনা থেকে।
রোববার দিবাগত রাত ৮টার দিকে বগুড়া জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল পাবনা শহরে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে। বগুড়া পৌরসভার সংরক্ষিত নারী আসনের কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকি (৩২) ও তার মা রুমি বেগম (৪৮) ধরা পড়ায় ধর্ষকের স্ত্রী আশাকে গ্রেফতারের পথ সহজ হয়ে যায়।

গ্রেফতারকৃত কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকি শহরের চকসুত্রাপুর এলাকার জাহিদ হাসানের স্ত্রী ও তার মা শহরের বাদুরতলা এলাকার জামিলুর রহমান রুনুর স্ত্রী।বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমদাদ হোসেন গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান।

তুফানের শালী শাশুড়ীকে গ্রেফতারের পর রোববার মধ্যরাতে তুফানের স্ত্রী আশা, তার গাড়ি চালক জিতু এবং সহযোগী মুন্নাকে সাভার থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এই গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে এ ঘটনায় দায়ের হওয়া দুটি মামলায় অভিযুক্ত ১০ জনের মধ্যে ৯ জনকেই গ্রেফতার করলো বগুড়া জেলা পুলিশ। শিমূল নামের অপর এক সহযোগী এখনও পলাতক রয়েছে।
সোমবার সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ বিষয়ে পুলিশ বিস্তারিত জানাবে বলে জানা গেছে।

পর্দার আড়ালে

‘তুফাননামা’র তদন্তকারী কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর আবুল কালাম আজাদ রবিবার দুপুরে ওই চারজনকে আদালতে হাজির করে তুফানসহ তিন আসামির সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। ওই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শ্যাম সুন্দর রায় তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন তুফান সরকার, আলী আজম দিপু ও রুপম হোসেনের।

তুফানের আরেক সহযোগী আতিকুর রহমান আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়ায় তার রিমান্ড চাওয়া হয়নি। জবানবন্দিতে ভর্তির কথা বলে ডেকে নিয়ে ওই কিশোরীকে তুফানের ধর্ষণের কথা স্বীকার করেন আতিকুর।
কিশোরীকে ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেপ্তার শ্রমিক লীগ নেতা তুফান সরকারকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। তুফানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আওয়ামী লীগের নির্দেশের পর শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটি এই সিদ্ধান্ত নেয়।

রবিবার ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগের সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সম্পাদকম-লীর বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বগুড়া ধর্ষণ নিয়ে কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘বগুড়ায় একটি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। আমাদের সহযোগী সংগঠন শ্রমিক লীগের এক নেতার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ নিয়ে আমাদের মধ্যে কথা হয়েছে। এটা আমাদের সহযোগী সংগঠন, তাই আমরা সরাসরি ব্যবস্থা নিতে পারি না। তবে তাদের অভ্যন্তরীণ সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিতে আমরা নির্দেশ দিয়েছি।’

তুফাননামার শেষ এপিসোড

আওয়ামী লীগের নির্দেশের পর তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্তে শ্রমিক লীগ থেকে তুফান সরকারকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেয় সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটি।

শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ বলেন, ‘আমরা তুফানকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করেছি। এখন আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেবে।’

বগুড়া জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি শামছুদ্দিন শেখ হেলালও তুফানকে দল থেকে বহিষ্কারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বেলা দুইটার দিকে জরুরি সভায় বসা হয়। সভা থেকে অনৈতিক কার্যকলাপে জড়িত থাকার অভিযোগে শহর শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক তুফান সরকারকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সে অনুযায়ী তাকে দল থেকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে।

পর্দা নামে নামে

বগুড়ার আলোচিত এই ধর্ষণ ঘটনায় বগুড়া জেলা প্রশাসক নূরে আলম সিদ্দিকী তিন সদস্যবিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। এতে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুস সামাকে প্রধান করা হয়েছে। জেলা প্রশাসক জানান, ওই কমিটিকে দ্রুততম সময়ের মধ্যে বিস্তারিত জানানোর জন্য বলা হয়েছে।এখানেই হয়তো ‘সহি তুফাননামা’র পর্দা নামবে। এর পরে আর কী হলো ? সেটা হয়তো আর জানতে পারবে না মগের মুল্লুকের পাবলিকেরা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2016-2020 asianbarta24.com
Theme Customized By BreakingNews