আজ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস: বাঙালির ইতিহাসে সবচেয়ে বেদনাদায়ক দিন

0002 এশিয়ানবার্তা: ১৯৭১ সালে বিজয়ের মাত্র দু’দিন আগে ১৪ ডিসেম্বর হত্যা করা হয় জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের। বাঙালি জাতিকে মেধাশূন্য করতে ইতিহাসের বর্বরতম হত্যাকান্ড চালায় পাকিস্তানি সেনাবাহিনী এবং তাদের এ দেশীয় দোসরেরা।

২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর অপারেশন সার্চ লাইটের সময়েই হত্যা করা হয় দেশের অনেক বুদ্ধিজীবীকে। মুক্তিযুদ্ধের পুরো সময় জুড়েই চলে এ নৃশংসতা।

তবে বুদ্ধিজীবী হত্যার সবচেয়ে বড় পরিকল্পনা ও প্রস্তুতি নেয়া হয় ১৯৭১ সালের ১০ ডিসেম্বর। নীল নকশা তৈরি করেন পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মেজর জেনারেল রাও ফরমান আলী। এ দেশীয় দোসর আল বদর, আল শামস, রাজাকার বাহিনীকে যুক্ত করা হয় পরিকল্পনা বাস্তবায়নের কাজে।

শিক্ষক, সাহিত্যিক, চিকিৎসক, সাংবাদিকসহ বেছে বেছে জাতির মেধাবী সন্তানদের তালিকা করা হয়। আর এই তালিকা ধরেই ১০ থেকে ১৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত বুদ্ধিজীবীদের নৃশংসভাবে হত্যা করে ঘাতক চক্র। মৃতদেহ ফেলে দেয়া হয় রায়েরবাজার ও মিরপুরের বধ্যভূমিতে।

ইতিহাসের জঘন্যতম এই হত্যাকান্ডে স্তম্ভিত হয়ে যায় পুরো বিশ্ব। শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস বাঙালির ইতিহাসে সবচেয়ে বেদনাদায়ক দিন। স্বজন হারানোর দিন।

দেশ স্বাধীনের পর এক তদন্তে বেরিয়ে আসে, দেশের ২০ হাজার বুদ্ধিজীবীকে হত্যার পরিকল্পনা ছিল ঘাতকদের। তবে এর আগেই ১৬ই ডিসেম্বর আত্মসমর্পণে বাধ্য হয় পাকিস্তানি বাহিনী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.