দিনাজপুরের কাহারোলে হিন্দু সম্প্রদায় আতংকিত

 

 

 

01বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) থেকে মোঃ নজরুল ইসলাম খান বুলু : ‌‌‌‌‌‌‌দূর্বৃত্তরা দিনাজপুর কাহারোল উপজেলার হিন্দু সম্প্রদায়ের অধ্যুষিত এলাকা মালগ্রামে কালি প্রতিমার মাথা ভাংচুর ও অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটিয়েছে। বোচাগঞ্জ উপজেলায় হিন্দু সম্প্রদায়ের হরিজনদের ঘরে অগ্নিকান্ড ঘটনার একদিন পর কাহারোলের এ ঘটনায় হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ছে।
গত ৩ ডিসেম্বর’১৬ দিবাগত রাত আনুমানিক ১ টার দিকে কাহারোল উপজেলার ৫নং সুন্দরপুর ইউনিয়নের মালগ্রাম পানুয়া পাড়া গ্রামের শিক্ষক সচিন্দ্র নাথ দাস এর পারিবারিক টসি কালি মন্দিরে এ ঘটনা ঘটে।  দুর্বৃৃত্তরা ২টি কালী প্রতিমার মাথা ভেঙ্গে পাশের পুকুরে ফেলে দেয় এবং বাড়ির বাহিরে খড়ের ৪টি টালিতে অগ্নি সংযোগ করে আতংক ছড়ায়।

সচিন্দ্র  নাথ দাসের স্ত্রী শ্যামলী রানী দাস জানান, অগ্নিকান্ডের লেলিহান শিখা ছড়িয়ে পড়ার সাথে দূবৃত্তরা পালিয়ে যায়। গ্রামের লোকজন এসে  খড়ের টালিতে লাগানো আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে দেখা যায় দূর্বৃত্তরা কালী মন্দিরের ঠাকুরের মাথা ও চেলার মাথা ভেঙ্গে পাশ্ববর্তী নদীতে ফেলে দেয়া হয়েছে। অত্র এলাকার হিন্দু সম্প্রদায় আতংকের মধ্যে দিন যাপন করছে।

02দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জনশীল গোপাল ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে হিন্দু সম্প্রদায়কে আতংকিত না হওয়ার অভয় দিয়ে বলেন, নাসিরাবাদ, বোচাগঞ্জের সাথে এ ঘটনা একই সূত্রে গাঁথা। জামায়াত বিএনপিকে জনগন প্রত্যাখান করায় কতিপয় উগ্রপন্থি ধর্মের নামে দেশকে অস্থিতিশীল করার জন্যই এ ধরণের ঘটনা সংঘটিত করছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নাশকতাকারীদের কঠোরহস্তে দমন করার পদক্ষেপ গ্রহন করেছেন।  প্রতিটি এলাকায় হিন্দু মুসলিম সম্প্রদায় সম্প্রীতি সৃষ্টি করে নাশকতাকারীদের বিরুদ্ধে প্রস্তুত থাকার আহবান জানান। তিনি বলেন, কাহারোল উপজেলায় কোন নাশকতাকারীদের স্থান নেই। রংপুর বিভাগের পুলিশের অতিরিক্ত ডি,আই,জি চৌধুরী মঞ্জুরুল কবির (পিপিএম বার) বলেন, পরিকল্পিত ভাবে এধরণের ঘটনা সংঘটিত করা হচ্ছে। আতংকের কিছু নেই দূর্বৃত্তদের আইনের আওতায় আনা হবে।

মালগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সচিন্দ্র চন্দ্র দাস অভিযোগ করেন সাম্প্রদায়িকতা দ্বন্দ সৃষ্টির কারনেই এ ঘটনা। তিনি নিরাপত্তার দাবি জানান। ঘটনাস্থলে দিনাজপুর পুলিশ সুপার হামিদুল আলম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আসলাম মোল্লা, এ,এস,পি (বীরগঞ্জ সার্কেল) সুজন সরকার, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বাবু গোপেশ চন্দ্র দাস, ৫নং সুন্দরপুর চেয়ারম্যান শরিফ উদ্দীন আহম্মেদ সহ স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে কাহারোল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ মনসুর আলী সরকার জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.