রাজশাহীর কোরবানির পশুহাটগুলোতে জমজমাট বেচাকেনার প্রস্তুতি: চাহিদার চেয়ে এক লাখ পশু উদ্বৃত্ত


মঈন উদ্দীন: রাজশাহীর কোরবানীর পশুহাটগুলোতে ইতোমধ্যেই জমজমাট
বেচাকেনার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। এবার চাহিদার চয়ে প্রায় এক লাখ
পশু উদ্বৃত্ত রয়েছে বলে জানাগেছে। করোনালগ্নে পশুহাটে স্বাস্থ্য সুরক্ষা
ও সামাজিক দূরত্ব কতটা মানা সম্ভব হবে- এমন প্রশ্ন জণমনে। তবে
স্থানীয় প্রশাসন ও প্রাণিসম্পদ অধিদফতর অনলাইনে কোরবানির পশু
বেচা-কেনা অনলাইনের ওপর গুরুত্বরোপ করছে।
রাজশাহী জেলা প্রাণিসম্পদ সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহী জেলায় গরু-
মহিষ রয়েছে প্রায় এক লাখ। এর মধ্যে ছাগল রয়েছে দুই ২৮ হাজার।
অন্যান্য রয়েছে ৪২ হাজার। সবমিলে মোট ৩ লাখ ৭০ হাজার। উদ্বৃত্ত
থাকবে এক লাখ গবাদি পশু।
রাজশাহী জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ডা. অন্তিম কুমার
সরকার জানান, ‘জেলায় পর্যান্ত পরিমাণে গবাদি পশু রয়েছে। রাজশাহী
জেলায় কোরবানি ইদে দুই লাখ গবাদি পশুর প্রয়োজন পড়ে। আর রয়েছে
প্রায় সাড়ে তিন লাখ কোরবানির জন্য উপযুক্ত পশু। এবছর প্রতিবেশি দেশ
ভারত থেকে গবাদি পশু আসবে না- এমন কথা সরকারের পক্ষ থেকে
জানানো হয়েছে আমাদের।’
হাট খোলা হলে কতোটা স্বাস্থ্য বিধি মানা সম্ভব এমন কথার উত্তরে
তিনি বলেন, ‘আমরা বড় বড় খামারিদের অনলাইনে পশু বিক্রির পরামর্শ
দিয়েছি। এতে হাটের উপরে চাপ কমলে করোনা সংক্রমণ কম হবে।’
তিনি জানান, ‘দেশের খামারি ও সাধারণ মানুষ আশা করে ইদের তিন
থেকে চার মাস আগে গরু লালন-পালন শুরু করে। কোরবানিতে বিক্রি করে
কিছু লাভের আশায়। তাদের দিকেও লক্ষ্য রাখতে হবে আমাদের। তবে জেলায়
যে পরিমাণে গবাদি পশু আছে তাতে সঙ্কট হওয়ার কথা নয়।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.