1. [email protected] : AK Nannu : AK Nannu
  2. [email protected] : arifulweb :
  3. [email protected] : F Shahjahan : F Shahjahan
  4. [email protected] : Mahbubul Mannan : Mahbubul Mannan
  5. [email protected] : Arif Prodhan : Arif Prodhan
  6. [email protected] : Farjana Sraboni : Farjana Sraboni
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪২ অপরাহ্ন

ডাক্তারদের মগজ ধোলাই করতে এমবিবিএসে জঙ্গিদের জীবনী

  • Update Time : সোমবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ২৫ Time View

ফকীর শাহ : হবু ডাক্তারদের মগজ ধোলাই করতে নতুন শিক্ষানীতি চালু করা হচ্ছে ভারতে ।এমবিবিএস ক্লাসে  সাম্প্রদায়িক উগ্র হিন্দু জাতীয়তাবাদী সংগঠন আরএসএস (রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ) নেতাদের জীবনী সংযুক্ত করা হয়েছে।এসব নেতাদের জীবনী পড়তে বাধ্য করা হচ্ছে এমবিবিএস শিক্ষার্থীদের।চিকিৎসকদের মগজ ধোলাইয়ের এমন সিস্টেম পৃথিবীর আর কোন দেশে এখন পর্যন্ত দেখা যায়নি।

ভারতের মধ্যপ্রদেশ রাজ্যের বিজেপি সরকার সেখানকার শিক্ষা ব্যবস্থাকে গেরুয়াকরণ করতে এমনই এক অদ্ভুদ আইন জারি করেছেন।এজন্য নতুন শিক্ষা নীতিমালা তৈরির কাজ এগিয়ে চলছে।

মধ্যপ্রদেশে নতুন শিক্ষা নীতি প্রনয়নের সঙ্গে জড়িতরা জানাচ্ছেন,মেডিকেল কলেজগুলোতে এমবিবিএস শিক্ষার্থীদের অ্যানাটমি ফিজিওলজির পাশাপাশি আরএসএস নেতাদের জীবনীও আয়ত্ব করতে হবে।এদের পাঠ্য সুচীতে আরএসএস নেতা কেশব বলিরাম হেগড়ে থেকে শুরিু করে দীনদয়াল উপাধ্যায়ের জীবনী সংযুক্ত করা হয়েছে। কৌশল করে তাদের জীবনীর সঙ্গে স্বামী বিবেকানন্দ ও বিআর আম্বেদকরের জীবনীও জুড়ে দেওয়া হচ্ছে।

ভারতের বিজেপি বিরোধী রাজনীতিকরা বলছেন,লাশ কাটাছেঁড়ার সিলেবাসে হিন্দুত্বের ‘অ্যানাটমি’ পড়িয়ে লাভ কোথায়? কী শিখবেন আগামীর চিকিৎসকরা? আসলে, ‘মোদির দেশ’-এ সবই সম্ভব। বিজেপির কাণ্ডকারখানা দেখে তাজ্জব শিক্ষক মহলের একটা বড় অংশও।

আরএসএস মানে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ।উপমহাদেশের রাজনীতিতে উগ্র সাম্প্রদায়িকতা ও ধর্মীয় সন্ত্রাসবাদের আঁতুড় ঘর হিসেবে পরিচিত সেই আরএসএস নেতাদের জীবনী পড়ে তাদের আদর্শে উজ্জীবিত হতে প্ররোচনা দেওয়া হচ্ছে রাষ্ট্রীয়ভাবেই।

মধ্যপ্রদেশে প্রতি বছর দু’ হাজারেরও বেশি ছাত্রছাত্রী এমবিবিএসে ভর্তি হন। মন্ত্রী বলেছেন, ‘সামনের শিক্ষাবর্ষ (২০২১) থেকেই পাঠক্রমে আরএসএস নেতাদের জীবনী পড়ানো হবে। এ বিষয়ে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।’

মধ্যপ্রদেশের শিক্ষামন্ত্রী সরংও বলেছেন, ‘এমবিবিএসের ভিত্তিবর্ষের পাঠক্রমে কী থাকবে, না থাকবে তার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয় রাজ্য। সেই কারনেই স্মরণীয়দের জীবনীকে আমরা পাঠ্যসুচীতে অন্তর্ভুক্ত করেছি। মানবসেবা এবং দেশ গঠনে তাঁদের মূল্যবান চিন্তাভাবনা পড়ুয়াদের আদর্শ চিকিৎসক হতে সহযোগিতা করবে।’

তাই বলে হিন্দুত্বের ‘আইকন’ বলে পরিচিত কেশব বলিরাম হেগড়ে কিংবা দীনদয়ালের জীবনীও পড়াতে হবে চিকিৎসকদের?

১৯২৫ সালে ভারতের নাগপুরে আরএসএসের প্রতিষ্ঠা করেছিলের হেগড়ে। সেই সঙ্ঘ পরিবারেই তৈরি হয়েছে আজকের বহু বিজেপি নেতা-নেত্রীর। উপাধ্যায়ও ভারতীয় জনসঙ্ঘের প্রথম সারির নেতা ছিলেন।

বিজেপি বিরোধী সমালোচকরা প্রশ্ন তুলেছেন যে ডাক্তারি পড়ুয়াদের হিন্দুত্বের সবক শেখাতেই কী সিলেবাসে ঢুকল তাঁদের জীবনী ঢুকানো হয়েছে ?

এপ্রসঙ্গে মধ্যপ্রদেশের শিক্ষামন্ত্রী সরংয়ের বক্তব্য, ‘ যাদের জীবনী পড়ানো হচ্ছে এঁরা সকলেই দিগ্‌দর্শী মানুষ ছিলেন। এঁদের জীবনবোধের একটা আলাদা গুরুত্ব রয়েছে। যা ডাক্তারির শিক্ষার্থীদের প্রেরণা জোগাবে, মূল্যবোধ শেখাবে।’

সচেতন মানুষ মাত্রই চিনেন ও জানেন আরএসএস এর চিরত্র সম্পর্কে।আরএসএস এর রাজনৈতিক দর্শণের মুল কথা হচ্ছে হিন্দুস্থান শুধুই হিন্দুদের। এখানকার মুসলমানদের এখানে থাকার অধিকার নেই। থাকতে হলে মুসলমানদেরকেও জয় শ্রীরাম বলে থাকতে হবে এবং সব ধরনের হিন্দুয়ানি পালন করতে হবে।

এজন্য ভারতের শিক্ষনীতিতে আমুল পরিবর্তন আনা হয়েছে। শিক্ষকে গেরুয়াকরণ করা হয়েছে।পাঠ্যসুচীতে আনা হয়েছে আমুল পরিবর্তণ। মুসলমান শিক্ষার্থীদের হিন্দুধর্ম পড়া বাধ্যতামুলক করা হয়েছে।সব শ্রেণির সিলেবাস পরিবর্তন করা হয়েছে। মাদরাসা ছাত্রদেরকে কুরআন হাদীসের পাশাপাশি বেদ পূরাণ গীতা মহাভারত পড়তে বাধ্য করা হেয়েছে।

ভারতের সব ইতিহাসই পাল্টে ফেলা হচ্ছে। ভারতের জনপ্রিয় বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থান ও স্থাপনার নাম থেকে মুসলমানদের ইতিহাস ঐতিহ্য মুছে ফেলে দিয়ে সেগুলো হিন্দু নামকরণ করা হচ্ছে।সব শ্রেণির শিক্ষার্থীদের ইতিহাস বই থেকে মুসলমানদের শাসনামল এবং কৃত্তিগাথা সরিয়ে সেখানে নানা কল্পকাহিনী জুড়ে দেওয়া হচ্ছে।এবার সেখানে ভবিষ্যতের চিকিৎসকদেরকে উগ্র সাম্প্রদায়িকতার তালিম দেওয়ার জন্য আরএসএস নেতাদের জীবনী শেখানো হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Comments are closed.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2016-2020 asianbarta24.com

Developed By Pigeon Soft