1. [email protected] : AK Nannu : AK Nannu
  2. [email protected] : arifulweb :
  3. [email protected] : F Shahjahan : F Shahjahan
  4. [email protected] : Mahbubul Mannan : Mahbubul Mannan
  5. [email protected] : namecheap :
  6. [email protected] : Arif Prodhan : Arif Prodhan
  7. [email protected] : RM Rey : RM Rey
  8. [email protected] : Farjana Sraboni : Farjana Sraboni
শনিবার, ১৯ জুন ২০২১, ০৬:০২ অপরাহ্ন
সর্বশেষ বার্তা :
সিরাজগঞ্জ বাঘাবাড়ী বেড়া বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের সরকারি গাছ কাটার হরিলুট রোশানকে নিয়ে ইকবালের তিন ছবি ইতিহাসের পাতায় সলঙ্গা বিদ্রোহের মহানায়ক মাওলানা আব্দুর রশীদ তর্কবাগীশ বানেশ্বরে শীতার্তদের মাঝে এনসিসি ব্যাংকের কম্বল বিতরণ নতুন তিন সিনেমায় সাইমন-মাহি জুটি পুঠিয়ায় ট্রাক্টর ও কারের মুখোমুখি সংঘর্ষে গুরুতর জখম দুইজন ফুলবাড়ীতে কর্মজিবী আদিবাসীদের মাঝে আর্থিক অনুদানের চেক প্রদান দৌলতদিয়ায়-পাটুরিয়া ফেরি চলাচল বন্ধ, মাঝ নদীতে ৪ ফেরি রাজবাড়ী পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ডে প্রতিবছর কোটি টাকার উন্নয়ন করা হবে -প্রার্থী পলাশ ঘন কুয়ায় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ফেরি ও লঞ্চ চলাচল আবারও বন্ধ নলডাঙ্গায় ট্রেনের ধাক্কায় আহত নারীর মৃত্যু

ডিমলায় অন্তঃসত্তা গৃহবধুকে নির্যাতনের ঘটনায় মামলা;ওসি’র ভুমিকা রহস্যজনক

  • Update Time : মঙ্গলবার, ৮ আগস্ট, ২০১৭
  • ১৪ Time View

 ক্রাইম রিপোর্টার নীলফামারী; প্রতিনি নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার খালিশা চাঁপানী ইউনিয়নের বাইশপুকুর কোলনঝাড় গ্রামে গরু চুরির অপবাদ দিয়ে অন্তঃসত্ত¡া গৃহবধু শেফালী বেগমকে গাছে বেঁধে নির্যাতনের ঘটনায় রবিবার গভীর রাতে সংশ্লিষ্ট থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে (মামলা নম্বর-১৬)। মামলার বাদী করা হয়েছে নির্যাতনের শিকার শেফালীর মামা ভটভটি চালক সহিদুল ইসলাম। ওই মামলায় আসামী করা হয়েছে খালিশা চাঁপানী ইউনিয়নের চার নম্বর ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ সভাপতি আব্দুর কাদের,এবং পুলিশের হাতে আটক উক্ত ওয়ার্ডের গ্রাম পুলিশের সর্দার রশিদুল ইসলাম, শেফালীর বড় বোন আকলিমার স্বামী রফিকুল ইসলাম ও শাশুড়ি অপেয়া বেগম সহ নামীয় ১৯ জন ও অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জনকে আসামী করা হয়। মামলার পর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটককৃত তিনজনকে পুলিশ গ্রেফতার দেখায়। এদের রবিবার বিকালে পুলিশ আটক করেছিল। সোমবার দুপুরে তাদের আদালতের মাধ্যমে জেলা  কারাগারে প্রেরন করে। তবে নতুন করে কোন আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।
এদিকে এই মামলায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শেফালী বেগম ডিমলা থানার ওসির বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তিনি সেখানে সাংবাদিকদের অভিযোগ করে বলেন, ঘটনার জড়িতদের নাম বাদ দিয়ে ডিমলা থানার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন  আমার মামা সহিদুল ইসলাম,  ছোটবোন শিউলি আক্তার মনিকে থানায় নিয়ে গিয়ে তার ইচ্ছে মত আসামী করে মামলা দায়ের করেন। কিন্তু আমার প্রতি নির্যাতনের ঘটনার সময় আমার মামা সহিদুল ইসলাম সেখানে উপস্থিত ছিল না। শেফালী আরো জানান, আমি জানতে পেরেছি ডিমলা থানার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন প্রকৃত জড়িতদের আড়াল করতেই খালিশা চাঁপানী ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক তামজিদার রহমানকে মামলার এক নম্বর সাক্ষি করেছে। এমন কি ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয় গ্রামের অনেক মানুষের নাম জড়িয়ে দিয়েছে ওসি। শেফালী আরো অভিযোগ করে জানান, তিনি সুস্থ্য হয়ে ফিরলে ঘটনার সঙ্গে জড়িত ছিল কিন্তু মামলায় তাদের নাম বাদ দিয়েছেন ওসি এমন জড়িত ব্যক্তিদের আসামী করে  নিজে বাদী হয়ে মামলা করব। আর যারা প্রকৃতভাবে জড়িত নয় তাদের মামলা হতে বাদ দিব।
কারন ডিমলা থানার ওসি আমার গ্রামবাসীকে আমার উপর ক্ষিপ্ত করে তুলতে চক্রান্ত করছেন।
নীলফামারী সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল ডিমলা ও ডোমার) জিয়াউর রহমান জিয়া বলেন, সংবাদপত্রে প্রকাশিত ঘটনার সুত্রে পুলিশ তদন্ত করে সত্যতা পেয়ে থানায় মামলা হয়েছে। ঘটনায় কয়েকজন প্রভাবশালী নাম বাদ দেয়ার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ঘটনার তদন্তে কারা জড়িত তা বের হয়ে আসবে। কারন মামলায় ১৯জন নামীয়সহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জন রয়েছে।
এদিকে এ লোমহর্ষক ঘটনায় ডিমলা থানার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন সাংবাদিকদের উপর যে চরম ক্ষিপ্ত হয়ে আছেন তার ক্ষোভ তিনি সোমবারও দেখিয়েছেন। সাংবাদিকরা মামলার কপি চাইতে গেলে ওসি পরিস্কার ভাবে জানিয়ে দেন  মামলার কপি শুধু মাত্র বাদী ও বিবাদী দেয়া হবে। থানা হতে সাংবাদিকদের মামলার কপি দেয়া হবে না। প্রয়োজনে সাংবাদিকরা মামলার কপি আদালত থেকে সংগ্রহ করবে। পরে সাংবাদিকরা মামলার কপি বিকল্প ব্যবস্থায় সংগ্রহ করতে বাধ্য হয়। স্থানীয় সাংবাদিকদের অভিযোগ ডিমলা থানার ওসি  সাংবাদিদের সাথে সব সময় খুব আচরন করেন এবং কোনো তথ্য চাইতে গেলে প্রায় কথায় কথায় তাদের বলেন তিনি তথ্য দিতে বাধ্য নয় আপনারা(সাংবাদিকেরা) যা ইচ্ছে আমার বিরুদ্ধে লিখতে পারেন ।
স্থানীয় এক সাংবাদিক নাম প্রকাশ না করবার শর্তে বলেন,একদিন ডিমলা থানার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে নারী সংক্রান্ত একটি ঘটনা আড়াল করতে আমিসহ অন্যান্য সাংবাদিকরে উপস্থিতিতে উৎকোচ বাবদ নিতে দেখে এটা কেমন হলো প্রশ্ন করলে তিনি আমাদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন,আপনাদের যা ইচ্ছে তাই লেখেন,আমি ওসি মোয়াজ্জেম শুধুমাত্র টাকায় বিশ্বাসী !
নির্যাতন মামলার এজাহারে দেখা যায় সংবাদপত্রে প্রকাশিত ঘটনার চিত্র রেখে আরো কিছু যোগ করা হয়। প্রভাবশালীদের মধ্যে যারা জরিত ছিল তাদের আসামীর নামের তালিকায় রাখা হয়নি।
মামলা দায়েরের ঘটনা ছড়িয়ে পড়লে সোমবার দুপুরে ঘটনাস্থল গ্রামে গিয়ে দেখা যায় গ্রামটি পুরুষ শুন্য হয়ে পড়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার অনেকেই জানান, আমরা বারবার বলেছিলাম মামলা করতে হলে নির্যাতনের শিকার শেফালীকে বাদী করা হোক। কিন্তু আমাদের কথা ডিমলা থানার ওসি কর্ণপাত করেনি। এখন ডিমলা থানার ওসি প্রকৃত জড়িতদের আড়াল করতে উঠে পড়ে লেগেছেন।কারন তিনি প্রথম থেকে এত বড় ঘটনাটিকে অস্বীকার করলেও পরে প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তপক্ষের সরেজমিনে প্রাথমিক তদন্ত সত্যতা মেলায় আসামী আটক করতে বাধ্য হন।বর্তমান অভিযোগপত্রে জড়িতদের অনেকে বাদ পড়েছে। মামলায় শেফালী বাদি হলে প্রকৃত আসামীদের নাম চলে আসতো।
মামলার বাদী শেফালীর মামা ভটভটি চালক সহিদুল ইসলামের এই প্রতিবেদককে বলেন, ঘটনার দিন আমি সকালে গ্রামের বাহিরে ছিলাম। আমাকে খালিশা চাঁপানী ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক তামজিদার রহমান মোবাইলে ডেকে আনে ঘটনাস্থলে। সেখানে আমার ভাগনিকে গাছে বেধে নির্যাতন করা হচ্ছিল, পরে সেখানে মুমুর্ষ অবস্থায় মাটিতেই শেফালী পড়ে ছিল। আমার হাতে শেফালীকে তারা তুলে দিয়ে চিকিৎসা করতে বলে। কিন্তু আমি ওই অবস্থায় আমার ভাগনিকে আমরা জিম্মায় নেইনি। আমি তাদের বলেছি তোমরা চিকিৎসা করে ওকে সুস্থ্য করে দিলে আমি নিব। এরপর আমি ঘটনাস্থল হতে চলে আসি।
খালিশা চাঁপানী ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক তামজিদার রহমানকে মামলার সাক্ষি করার বিষয়ে তিনি বলেন, ওই নেতাইতো আমাকে মোবাইলে ডেকে আনে ঘটনাস্থলে। তিনি সব জানেন তাই তাকে সাক্ষি করেছি।
মামলা দায়ের  প্রসঙ্গে তিনি বলেন রবিবার বিকালে পুলিশ আমাকে ও শেফালীর ছোট বোন শিউলীকে থানায় ডেকে নিয়ে যায়। শেফালীর ছোট বোন ও আমার কথা শুনে পুলিশ এজাহার তৈরী করে। সেখানে আমরা দুইজনে স্বাক্ষর করি।
মামলায় কারা কারা আসামীদের নামতো দুরের কথা কতজন আসামী তাও বলতে পারেনি শেফালীর মামা মামলার বাদী সহিদুল ইসলাম। এদিকে তার দায়েরকৃত মামলায় আসামীদের নাম  দেখা যায় খালিশা চাঁপানী ইউনিয়নের বাইশপুকুর কোলনঝাড় গ্রামের দেবারু মামুদের দুই ছেলে অপিয়ার রহমান (২৩) ও  রফিকুল ইসলাম (৪২), দবির উদ্দিনের ছেলে তিন ছেলে আলী হোসেন (৩৫), আবু বক্কর সিদ্দিক(৩০) ও মনোয়ার হোসেন (২৮), মৃত. আলাপু মামুদের দুই ছেলে দবির উদ্দিন (৫৫) ও আহেদুল ইসলাম (৩৮), হামিদুর রহমানের ছেলে আতাউল রহমান (১৯),  আবু বক্কর সিদ্দিকের স্ত্রী তহমিনা বেগম (২৩), আলী হোসেনের স্ত্রী রূপালী বেগম (২৮), মনোয়ার হোসেনের স্ত্রী মনছুরা বেগম (২৪), অপিয়ার রহমানের স্ত্রী তুলি বেগম (২১), হামিদুল ইসলামের স্ত্রী ফাতেমা বেগম (৪০), মাহাবুর রহমানের স্ত্রী সূলতানা বেগম (২৪), দেবারু মামুদের স্ত্রী অপিয়া বেগম (৬০), মৃত. খটেয়া মামুদের ছেলে খালিশা চাঁপানী ইউনিয়নের চার নম্বর ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল কাদের (৬০), মৃত. আবুল হোসেনের ছেলে ওই ওয়ার্ডের গ্রাম পুলিশ রশিদুল ইসলাম (৪০), সফিয়ার রহমানের স্ত্রী রাজিয়া বেগম (২৭) ও দবির উদ্দিনের স্ত্রী খালিকুন বেগম (৫০) সহ ৪/৫ জন অজ্ঞাত।
উল্লেখ যে একটি পারিবারিক ঘটনাকে পুঁজি করে এলাকার কিছু প্রভাবশালী মহল দিনদুপুরে শেফালীকে গরু চুরির অপবাদ দিয়ে গত শুক্রবার গ্রামে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন করেছিল। পুলিশ গিয়ে শেফালীকে  চিকিৎসা নেবার পরামর্শ দেয়।
পরে ডিমলায় অন্তঃসত্তা গৃহবধুকে মধ্যযুগীয় কায়দায় গাছে বেধে নির্যাতন” শিরোনামে বিভিন্ন গনমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলে প্রশাসনে তোলপাড় শুরু হয়ে যায়।
উল্লেখ যে উক্ত গ্রামে জমিজমা সংক্রান্ত এক বিবাদে শেফালীর বাবা মবিয়ার রহমানকে ২০১২ সালের ২৯ জুলাই ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে প্রতিপক্ষরা হত্যা করেছিল। মামলায় এলাকার ১৬ জনের বিরুদ্ধে আদালতে পুলিশ চার্জশীট প্রদান করেন। মামলাটি বর্তমানে নীলফামারী জেলা ও দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। আগামী ২২ আগষ্ট হত্যার মামলা সাক্ষ্য রয়েছে। প্রভাবশালীরা ওই মামলা মিমাংসার জন্য চাপ দিয়ে আসছে। তারা পিতার হত্যা মামলা আপোষ না করায় প্রতিপক্ষরা সম্প্রতি ডিমলা থানায় একটি মিথ্যা মামলা করেছে । ফলে শেফালীর একমাত্র ভাই রমজান পুলিশের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। এলাকায় কোন ঘটনা ঘটলেই শেফালী ও তার ভাইয়ের উপর নির্যাতনে খড়ক নেমে আসে। শেফালী ওই গ্রামের লালন মিয়ার স্ত্রী। তার স্বামী ঢাকায় রিক্সাচালায়। খবর পেয়ে তিনি রংপুরে স্ত্রী শেফালীর কাছে রয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2016-2020 asianbarta24.com
Theme Customized By BreakingNews