1. [email protected] : AK Nannu : AK Nannu
  2. [email protected] : arifulweb :
  3. [email protected] : F Shahjahan : F Shahjahan
  4. [email protected] : Mahbubul Mannan : Mahbubul Mannan
  5. [email protected] : Arif Prodhan : Arif Prodhan
  6. [email protected] : Farjana Sraboni : Farjana Sraboni
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:০৯ অপরাহ্ন
সর্বশেষ বার্তা :
সিরাজগঞ্জ বাঘাবাড়ী বেড়া বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের সরকারি গাছ কাটার হরিলুট ইঞ্জিনিয়ারিং সিলেবাসে রামায়ন মহাভারত থাকলে কুরআন বাইবেল থাকবে না কেনো ? মসজিদের জমিতে শিবলিঙ্গ স্থাপন করে মন্দির বানানোর পাঁয়তারা নিজের হাতেই করুন নিজের জীবন বাঁচানোর পরীক্ষা পরীমনির হাতের মাঝে হৃদয়ের ভাষা খাড়ালেই ভোট দাঁড়ালেই এমপি : রাজনীতিতে নির্বাচনী দৌড়ঝাঁপ শুরু বিশ্বের মুসলিম স্কলারদের অভিনন্দন তালেবানদের : খুলাফায়ে রাশেদার দৃষ্টান্ত স্থাপনের আহবান পাকিস্তানের আগেই তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি ভারতের মহাসমারোহে চলছে ফ্রি ফায়ার পাবজি ভুয়া খবরে লাইক শেয়ার কমেন্ট বেশি যে কারনে ধর্মের নামে ব্যবসা : ইমামতি ছেড়ে ২০ হাজার কোট টাকার মালিক মুফতি রাগীব হাসান

সিরাজগঞ্জে যমুনার চরাঞ্চলে তিন শাতাধিক কৃষকের ভাগ্য বদলে গেছে

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২২ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ৪৮ Time View

14 সিরাজগঞ্জ থেকে এইচ.এম মোকাদ্দেস: সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার যমুনার চরাঞ্চলে শীতকালিন সবজি চাষ করে প্রায় তিন শাতাধিক চাষীর ভাগ্য বদলে গেছে। এবছর তারা লাউ, সীম, করলা, মূলা, পালংশাক, মিষ্টি কুমড়া, লালশাক, পুঁইশাক ইত্যাদির আবাদ করেছেন। তবে সবচেয়ে বেশি ভাল ফলন হয়েছে লাউ চাষে। লাউয়ের বাম্পার ফলন যমুনার চর বাসীকে অবাক করে দিয়েছে। চৌহালী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুহাম্মদ শাহাদৎ হোসাইন সিদ্দিকী জানান, এবছর যমুনার চরাঞ্চলে ৭০ হেক্টর জমিতে লাউয়ের চাষ হয়েছে। সে মোতাবেক হেক্টর প্রতি ৩শ’ মণ ফলন হিসেবে মোট ২১ হাজার মণ লাউ উৎপাদিত হবে। যার বর্তমান বাজার  মূল্য দাঁড়াবে প্রায় এক কোটি ৩০ লক্ষ টাকা।

জানা যায়, যমুনার চরাঞ্চল অধ্যুষিত চৌহালী উপজেলার স্থল ইউনিয়নের গোসাইবাড়ি, তেঘুরি, নওহাটা, কুরাগাছা, সদিয়া চাঁদপুরের বোয়ারকান্দি, বারবয়লা, বেতিল চর, উমারপুর, খাষপুখুরিয়া, বাঘুটিয়া, খাষকাউলিয়া, ঘোড়জান, বেলকুচি উপজেলার সদর ইউনিয়নের ছোট বেড়াখারুয়া, বড় বেড়াখারুয়া, বেলকুচি চর, বড়ধুল ইউনিয়নের ক্ষিদ্রচাপরী, চরবেল, ষোলশত জাঙ্গালিয়া, গাছচাপরী, বিলমসিহা, রাজাপুরের রান্ধুনী বাড়ি চর, চকমকিম পুর ও শাজদপুর উপজেলা পূর্বাঞ্চলের সোনাতনী ইউনিয়নের বানতিয়ার, ছোট চানতারা, বড় চানতারা, কৈজুরি ইউনিয়নের ভারধিগুলিয়া, ঠুটিয়ার চর, ভাটপাড়া, গালা ইউনিয়নের বাঙ্গালীর চর ও গালার চরসহ তিন উপজেলার যমুনার চঞ্চলের ঘেষা প্রায় প্রতিটি চরের বাড়িতে বাড়িতে ও জমিতে লাউসহ শীতকালিন সবজির আবাদ করা হয়েছে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবছরই সবচেয়ে বেশি লাউয়ের আবাদ করেছেন এসব চরাঞ্চলের মানুষ।

এ অঞ্চলের কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, চলতি বছর যমুনার চরাঞ্চলে নদী ভাঙন ও দফায় দফায় বন্যা হয়েছে। যার কারনে সবজি চাষে বেশ অসুবিধায় পড়তে হয়েছে কৃষকদের। বন্যার পানি এসে আউশ, আমন ও সবজিসহ আবাদী ফসল নষ্ট করে দেয়। এসব কারণে চরাঞ্চলের মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়ে। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের উপজেলা কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে বিনামুল্যে শীতকালীন বিভিন্ন সবজির বীজ বিতরণ করা হয়। কৃষকরা পলিথিনে, মাটির পাত্রে বীজ বপনের ব্যবস্থা করেছেন, যাতে বন্যার পানি বা বৃষ্টিতে নষ্ট না হয়। এরপর বন্যার পানি সরে যেতেই চারা বড় হয়ে যায় এবং দ্রুত ফল দিতে শুরু করে। এদিকে  চৌহালী উপজেলার কুরকী মোল্লা পাড়া, কুরকী নতুন পাড়া, কোদালিয়া, খাষপুকুরিয়া মাষ্টারপাড়া, মধ্যজোতপাড়া ও বৈন্যা গ্রামের অর্ধশত কৃষক পরিবারে শীত কালীন সবজি চাষে সফলতা এসেছে। তারা এখন প্রতি বছরই শীত কালীন সবজি চাষে আগ্রহী হয়েছেন।

বিশেষ করে লাউয়ের বাম্পার ফলন দেখে অনেকেই লাউ চাষে আগ্রহী উঠছেন। অনেকেই আগামী বছর থেকে বানিজ্যিক ভিত্তিতে লাউ চাষের স্বপ্ন দেখছেন। এদিকে লাউয়ের সরবরাহ বেশী থাকলেও দাম কমেনি। গড়ে প্রতিটি লাউয়ের দাম ২০ থেকে ৩০ টাকা। এলাকার বিভিন্ন হাট বাজার থেকে পাইকাররা এসে সড়ক ও নৌ পথে রাজধানী ঢাকা, গাজিপুর, টাঙ্গাইলসহ বিভিন্ন অঞ্চলে নিয়ে যান। তারা নিজেদের পরিবারের চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি লাউ বিক্রি করে বিপুল পরিমান অর্থ উপার্জন করছেন। কুরকী নতুন পাড়ার সবুজ মিয়া, কোদালিয়া আমিরুল ইসলাম ও মধ্যজোতপাড়া গ্রামের ছমের জালাল জানান, এ বছর আমাদের এলাকায় সবজির আবাদ ভাল হয়েছে। শুধু লাউ বিক্রি করেই আড়াই লক্ষাধিক টাকা উপার্জন করা হয়েছে। অল্প পরিশ্রম করে অধিক মুনাফা পাওয়ায় এলাকার অনেকেই লাউ চাষে আগ্রহী  হয়ে উঠছেন।

তবে কৃষি অফিস থেকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদান করলে চরবাসীর বেশি উপার্জনের এটি একটি অন্যতম মাধ্যম হতে পারে এবং চরাঞ্চলের মানুষের জীবনমান বদলে যেতে পারে। এছাড়া উমারপুর চরের ফারুক হোসেন জানান, চলতি মৌসুমে অন্যান্য সবজরি সঙ্গে ৬০ শতাংশ জমিতে লাউ চাষ করা হয়েছে। প্রতিদিন গড়ে ৮০/১০০টি করে লাউ তুলে বাজারে প্রতিটি লাউ লাভজনক দামে পাইকারদের কাছে বিক্রীর করা হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, ৬০ শতাংশ জমিতে লাউ চাষ করতে তার খরচ পড়েছে মাত্র ছয়-সাত হাজার টাকা। আর এবার লাউ বিক্রি করে দেড় লক্ষাধকি টাকা মুনাফা হবে বলে আশা করছেন।

এ ব্যাপারে চৌহালী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শাহাদৎ হোসাইন সিদ্দিকী বলেন, যমুনার চরে লাউ ও সবজি চাষে সফলতা দেখে  ইতোমধ্যে অনেকেই আমাদের সাথে যোগাযোগ করে সবজি চাষে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। তবে উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে ছোট আকারে সবজি চাষে প্রকল্প গ্রহণ করলে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক চাষীদেরকে সবজি চাষে উদ্বুদ্ধ করা যেতে পারে। সবজি চাষে অধিক মুনাফা পেয়ে বদলে যেতে পারে যমুনা চরাঞ্চল মানুষের জীবন যাত্রার মান।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2016-2020 asianbarta24.com

Developed By Pigeon Soft