গোবিন্দগঞ্জে বালু দস্যু বাবু বাহিনী আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ

 

 

 

 

 
1গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) থেকে নূর আলম আকন্দ : গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে বালু দস্যু বাবু বাহিনীর দৌরাত্মা বৃদ্ধি পেয়ে রাতা রাতি আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়েছে। এলাকার রাস্তা, ঘাট , শিক্ষা প্রতিষ্টান , মসজিদ , বসত ভিটা , আবাদী জমি সহ বিদ্যুতের খুটি হুমকীর মূখে  প্রশাসন রহ্যসজনক কারনে নিরব।
সরেজমিনে জানা গেছে গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত কাটাখালী নদীর  তীঁরবর্তী  তালুককানুপুর ইউনিয়নের শমসপাড়া শিখশহর গ্রামের বালু দস্যু বাবু বাহিনীর সদস্য রাজা মিয়া, দুদু মিয়াসহ ১০/১৫ জনের একটি সংঘবদ্ধ বাহিনী নদীগর্ভের ৮০/১০০ ফিট নীচ থেকে প্রতিনিয়ত বালু উত্তোলন করে আসছে।

সংঘবদ্ধ দলটি কাউকে তোয়াক্কা না করেই উক্ত শমসপাড়া গ্রামের নিকটবর্তী কাটাখালী নদীতে ১৫/২০ টি উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন শ্যালো ও ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের ফলে জমি ডেবে গিয়ে এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্টান , মসজিদ, মাদ্রাসা, রাস্তাঘাট, বসত বাড়ী, ফসলী জমি সহ বিদ্যুতের খুটি হুমকির মূখে পড়েছে। ইতিমধ্যে এই কারনে শত শত বিঘা আবাদী জমি ও অর্ধশতাধীক পরিবারের বসত বাড়ী নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে বলে জানা যায। তাছারাও উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন বিদ্যুতের খুটি উপরে পরে যে কোন মূহুর্তে বিদ্যুৎ সংযোগ বিছিন্ন হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

উল্লেখিত কারনে বালু দস্যুদের সঙ্গে ক্ষতিগ্রস্থ্য গ্রামবাসীদের মধ্যে একাধীকবার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সব উত্তোলনকৃত বালু গোবিন্দগঞ্জ উপজেলাসহ দেশের বিভিন্ন  এলাকায় সরবরাহ করে তারা রাতা রাতি আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হচ্ছে। আর এই সব বালু বহনকারী যানবাহন ট্রাক , ট্রাক্টোর , ট্রলি , গ্রামের মিঠো রাস্তায় চলাচলের সময় বিভিন্ন প্রকার দূর্ঘটনাসহ রাস্তা ভেঙ্গে জন চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে।

গ্রাম বাসী অভিযোগ করেন নদীগর্ভ থেকে বালু উত্তোনের বাধা দিলে তারা আরও বেপরোয়া হয়ে অধিক মাত্রায় বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছে। এলাকাবাসী জানান এ ব্যাপারে বালু উত্তোলন বন্ধের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হলেও কর্তৃপক্ষ রহস্যজনক কারনে কোন পদক্ষেপ না নেয়ায় তাদের দৌরাত্মা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। অবিলম্বে এই সব বালু দস্যুদের সরঞ্জামাদী জব্দসহ বালু দস্যুদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিছেন এলাকার সচেতন মহল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.