বগুড়ার নন্দীগ্রামে আলু চাষে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা

10নন্দীগ্রাম (বগুড়া) থেকে মাসুদ রানা : বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়ন ও পৌরসভার বিভিন্ন মাঠে আলু চাষে চাষীরা এখন ব্যস্ত দিন পার করছেন। জানাযায়, চলতি মৌসুমে উপজেলা ও পৌরসভার বিভিন্ন মাঠে কৃষকেরা রেকর্ড পরিমান জমি চাষ করে আলু রোপনের জন্য প্রস্তুত করছেন। কৃষকরা ঐ জমিতে যে সকল জাতের আলু চাষ হচ্ছ্ তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, কার্ডিনাল, এ্যাস্টিস, ডায়মন্ড, রুমানা , পাকড়ি। কষৃকরা এ সব জাতের  মধ্যে এ্যাস্টিস, ডায়মন্ড পাকড়ি জাতের আলু বেশী চাষ করছে তবে প্রতি বছরের তুলনায় এ বছর আলু চাষ বেশি হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে ।এ বছর এখন পর্যন্ত আলু চাষের কোন লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারন করা হয়নি ।

প্রথমদিকে আলু বীজ সংকট মুল্য বৃদ্ধি মজুর সংকট সহ বিভিন্ন্ সমস্যা থাকলেও এখন প্রচুর পরিমান জমি আলু চাষের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। বর্তমান বাজারে আলু বীজের দাম, কার্ডিনাল প্রতি ৪০কেজির  বস্তা ১৮শ থেকে ২০০০ হাজার টাকা , এ্যাস্টিস ১৯শ থেকে ২৪শ টাকা, রুমানা ২২ থেকে ২৪শ টাকা। পাকড়ি প্রতি কেজি ২৫ থেকে ৩০ টাকা দরে বিক্রয় করা হচ্ছে। অন্যদিকে নন্দীগ্রামে ২৩ জন বীজ ডিলার থাকলেও সরকারী ভাবে কোন বীজ বরাদ্দ্ করা হয়নি ফলে আলু চাষীরা বাজার থেকে বীজ কিনে রোপন করতে হচ্ছে।

বীজ বিক্রেতা জিয়াউর রহমান ও পুলু মিয়া জানান, প্রতিদিন আলু চাষী বীজ নেওয়ার জন্যে দোকানে এসে ভীড় করছে কিন্ত বীজ না থাকার কারনে আমরা দিতে পারছিনা। আলু চাষী,জয়নাল, রফিক , বাছেদ, মাসুদ, নুর-আলম, বুলু , মকছেদ, এই প্রতিনিধিকে জানায়, আমরা জমি চাষ করে ফেলে রেখেছি কিন্ত বীজ দেরিতে পাওয়ায় রোপন একটু পিছিয়ে গেলেও ফলন ভালো হবে বলে আশা করছি । বছরের শেষের দিকে বৃষ্টি হওয়ার কারনে আলু জমি তৈরী করার জন্য নতুন করে সেচ দিতে হয়নি । এ ব্যাপারে কৃষিকর্মকর্তা মোঃ মশিদুল হকের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান সরকারী ভাবে কোন বীজ সরবাহ না থাকার কারনে চাষীদের কিছুটা সমস্যা হয়েছে কিন্ত তার পরেও এ বছর আলু চাষ গত বছরের তুলনায় বেশী হবে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.