সিরাজগঞ্জের কাজিপুরের চরের প্রতিবন্ধী কদম আলী নিজের পায়ে দাঁড়াতে চায়

 

 

 

 
2কাজিপুর (সিরাজগঞ্জ) থেকে টি এম কামাল: সিরাজগঞ্জের কাজিপুরের দুর্গম চরাঞ্চলে খাষশুড়িবেড় গ্রামের মৃত মতিয়ার রহমানের ছেলে প্রতিবন্ধী কদম আলী ভিক্ষাবৃত্তি নয় কাজ করে নিজের পায়ে দাঁড়াতে চায়। গত বুধবার কদম আলীর বাড়ীতে গিয়ে দেখা যায় সে জামা তৈরীর কাজ করছে। কদম আলী জানান, প্রাকৃতিক ভাবে সে প্রতিবন্ধী হয়ে পিতা-মাতার গলগ্রহ হয়ে জন্মগ্রহণ করে। দশ বছর বয়সে তার পিতা মারা যাওয়ায় তার জীবনের উপর নতুন করে অমানিশার ঘোর অন্ধকার নেমে আসে।

যমুনার ভাঙ্গনের কবলে পড়ে অনেক আগেই জমিজমা হারিয়ে নিঃস্ব অবস্থায় অন্যের বাড়ীতে মাথাগুজে পড়েছিল। একমাত্র উপার্জনক্ষম পিতা কে হারিয়ে পরিবারটি একেবারে দিশেহারা হয়ে যায়। পিতার অবর্তমানে দুখিনী মা ঝিয়ের কাজ করে সংসারের হাল ধরেন। কিন্তু বালক কদম আলীর মনে তা কষ্টের কারণ হয়ে দাড়ায়।

3মানুষের কাছে হাত পেতে ভিক্ষাবৃত্তি করা তাঁর মনে কখনও সায় দেয়নি। তার সবসময় চিন্তা ছিল নিজে কিছু করা। ঠিক সেই সময় নাটুয়ারপাড়া এলাকার তরুণ সমাজসেবক জাহিদুল হাসান স্বপন, খাষশুড়িবেড় উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এনামুল হক, নাটুয়ারপাড়া ইউপি সদস্য মফিজ উদ্দিন, সোনালী ব্যাংক নাটুয়ারপাড়া শাখার ম্যানেজার আব্দুল লতিফ কান্ডারীর মত তাঁর দিকে হাত বাড়ায়।

নিজেরা সহযোগিতার পাশাপাশি কদম আলীর অসহায় অবস্থার কথা এলাকার দানশীল ব্যত্তিত্ব ঢাকায় অবস্থিত বসুন্ধরা গ্রপের ম্যানেজার আমিনুল ইসলামের নিকট থেকে কদম আলীর জন্য সেলাই মেশিনের ব্যবস্থা করে দেন। সেই সাথে কিছু আর্থিক সহযোগিতায় কদম আলী এখন নিজের পায়ে দাঁড়িয়েছে। কদম আলী সেলাইয়ের কাজ করে সংসারের স্বচ্চলতাই আনেনি নিজের এবং পরিবারের অত্মসামাজিক অবস্থার উন্নয়ন ঘটাতে সক্ষম হয়েছে। এ বিষয়ে জাহিদুল হাসান স্বপন জানান, আমিনুল ইসলাম শুধু কদম আলীকেই নয় এলাকার ২৫ জন প্রতিবন্ধী পরিবারসহ শতাধিক দুস্থ পরিবারকে নানাভাবে সাহায্য সহযোগিতা করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.