গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে ঘুষ গ্রহণ ও চাঁদাদাবীর অভিযোগে পাল্টাপাল্টি মামলা

 

01গাইবান্ধা প্রতিনিধি: গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় চাঁদা দাবী ও মারপিটের অভিযোগে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক ছামিউল ইসলাম সামুসহ পাঁচজন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. নুরুন্নবী সরকার।

এছাড়া ব্রিজের কাজ দেওয়ার কথা বলে ১২ লাখ টাকা ঘুষ গ্রহণ ও মারপিটের অভিযোগ এনে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. নুরুন্নবী সরকারের বিরুদ্ধে পাল্টা মামলা করেছেন উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক ছামিউল ইসলাম সামু।

বুধবার রাত ১১টার দিকে সুন্দরগঞ্জ থানায় মামলা দুটি দায়ের হয়। এরমধ্যে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. নুরুন্নবী সরকারের মামলায় ছাত্রলীগ নেতা সামুসহ পাঁচজনকে আসামি করা হয়েছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. নুরুন্নবী সরকার মামলার এজাহারে উল্লেখ করেন, ছাত্রলীগ নেতা ছামিউল ইসলাম সামুসহ অন্য আসামিরা তার কাছে দীর্ঘদিন ধরে মোটা অংকের চাঁদাদাবী করে আসছিলেন। চাঁদার টাকা না দেওয়ায় তারা বিভিন্ন হুমকিও দিচ্ছিলেন। মঙ্গলবার তারা দলবদ্ধভাবে অফিস কার্যালয়ে এসে হুমকি ও গালিগালাজ করে তাকে মারপিট করে। এ ঘটনায় তিনি নিজে বাদি হয়ে ছামিউল ইসলাম সামুসহ পাঁচজনকে আসামি করে মামলা করেন। (মামলা নং ৩৩)

অপরদিকে, ছাত্রলীগ নেতা ছামিউল ইসলাম সামু মামলার এজাজারে উল্লেখ করেন, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. নুরুন্নবী সরকার দুর্যোগ ও ত্রান মন্ত্রনালয়ের অধীনে সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় ৩টি ব্রিজের কাজ দেওয়ার কথা বলে তার কাছে ১২ লক্ষ টাকা নেয়। পরবর্তীতে তিনি ওই ব্রিজের কাজ তাকে না দিয়ে অন্যজনকে দেয়। পরে তিনি নুরন্নবী সরকারের কাছে টাকা ফেরত চান। কিন্তু তিনি টাকা ফেরত দিতে তালবাহনা করেন। এরপর টাকা উদ্ধারে বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকেও অবগত করেন তিনি। মঙ্গলবার টাকা চাওয়াকে কেন্দ্র করে নুরুন্নবী সরকার তাকে মারপিট করেন। বর্তমানে তিনি সুন্দরগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এ ঘটনায় ঘুষের টাকা ফেরত ও মারপিটের অভিযোগে তিনি বাদি হয়ে সুন্দরগঞ্জ থানায় মামলা করেন। (মামলা নং ৩৪)।

এ ব্যাপারে পিআইও নুরন্নবী সরকারের দায়ের করা মামলার অভিযোগ অস্বীকার করে ছাত্রলীগ নেতা সামু বলেন, দীর্ঘদিন ধরে নুরুন্নবী সরকার নানা দূর্নীতি করে আসছেন। তাকে বদলির দাবীতে সভা, সমাবেশ ও বিক্ষোভ কর্মসূচিও পালন হয়। মূলত ঘুষের টাকা ফেরত চাওয়ায় তিনি মিথ্যা অভিযোগে আমাকেসহ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

এ বিষয়ে পিআইও নুরন্নবী সরকারের একাধিবার ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

সুন্দরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আতিয়ার রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ঘুষ গ্রহণ, মারপিট ও চাঁদাবাজির অভিযোগে সুন্দরগঞ্জ থানায় পৃথক দুটি মামলা হয়েছে। মামলা দুটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.