গোবিন্দগঞ্জের আদিবাসীদের ওপর বর্বরচিত ঘটনায় মামলা: গ্রেপ্তার-৫

11গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা)প্রতিনিধি: গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সাহেবগঞ্জ ইক্ষু খামারের সাঁওতালদের ওপর হামলা, বাড়ি-ঘরে অগ্নিসংযোগ ও লুট-পাটের ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে। অজ্ঞত ৫/৬‘শ জনকে আসামী করে সাঁওতালদের পক্ষে এ মামলা দায়ের করা হয়। শেষ খবর পর্যন্ত এই মামলায় ৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল সকাল ১১টার দিকে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেন গোবিন্দগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুব্রত কুমার সরকার। এদিকে মামলা দায়ের ঘটনাটি রহস্য জনক বলে দাবি সাঁওতাল নেতাদের।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোবিন্দগঞ্জ থানা এস আই আব্দুল গফুর জানান, গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের সাঁওতাল পল্লীতে হামলা ও, বাড়ি-ঘরে অগ্নিসংযোগ ও লুট-পাটের  ১০ দিন পর গত বুধবার উপজেলার মৌয়ালী পাড়ার মৃত সমেশ মুরমুর পুত্র স্বপন মুরমু বাদী হয়ে এই মামলা দায়ের করেন। ১৪৭, ১৪৮, ৩২৩, ৩২৫, ৩২৬, ৩০৭, ৩৭৯, ৩৮০, ৪৩৬, ৩০২ ও ৩৪ ধারায় মামলা দায়ের করা হয় যাহার মামলা নং-২৩, ১৬ নভেম্বর। মামলা দায়েরের পর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে এ পর্যন্ত ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, চক রহিমাপুরের মৃত মনির উদ্দিনের ছেলে মানিক সরকার (২৬), তরফ কামালের ওয়াহেদ আলী বাবুর ছেলে চয়ন মিঞা (২৫), চক রহিমাপুরের মৃত হোসেন আলীর ছেলে বাদশা মিঞা (৬০), সাহেবগঞ্জের মৃত আব্দুর জব্বারের ছেলে আব্দুর রশিদ (৫০), সাহেবগঞ্জের আছালতজ্জামানের ছেলে শাহ নেওয়াজ (৩৮)।

গোবিন্দগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুব্রত কুমার সরকার জানান, বুধবার রাত পৌনে ১২টার দিকে ক্ষতিগ্রস্ত সাঁওতালদের পক্ষে স্বপন মুরমু অজ্ঞাতনামা ৫/৬ ’শ জনকে আসামি করে মামলাটি দায়ের করেন। এরপর অভিযান চালিয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।
এদিকে, কে বা কারা এই মামলা দায়ের করেছে তা কিছুই জানে না সাঁওতালদের ভূমি উদ্ধার কমিটি। ভূমি উদ্ধার কমিটির সহ-সভাপতি ফিলিমন বাস্কে বলেন, আমরা কেউ জানিনা কি ভাবে এই মামলা হয়েছে।

তাছাড়া আমাদের উপর হামলার ঘটনা প্রকাশ্যে ঘটেছে। এই মামলা কেন অজ্ঞতনামা আসামী হবে। যদি কোন মামলা হয়ে থাকে সেটা রহস্য জনক। প্রকৃত ঘটনাকে আড়াল করতে এই মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.