বগুড়ার শেরপুরে দুই শিক্ষককে পেটালেন ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি রামকৃষ্ণ

10শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি: বগুড়ার শেরপুরের ভবানীপুর উচ্চবিদ্যালয়ে বিনা টাকায় এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে রাজি না হওয়ায় দুই শিক্ষককে পেটালেন ওই ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি। পরে তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আহতরা হলেন প্রধান শিক্ষক মোখলেছুর রহমান ও সহকারী শিক্ষক আমিরুল ইসলাম। গত ১৪ নভেম্বর সোমবার দুপুর ১২টার দিকে এই ঘটনা ঘটে।

আহত প্রধান শিক্ষক মোখলেছুর রহমান বলেন, আমরা স্কুলের অফিসে বসে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের কাজ করছিলনাম। এ সময় ভবানীপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি রামকৃষ্ণ এসে টাকা ছাড়াই এক পরীক্ষার্থীর ফরম পূরণের দাবি জানান। কিন্তু তার আগেই ওই পরীক্ষার্থীর মা স্কুল পরিচালনা কমিটির সদস্য সবিতা রানী এক হাজার টাকায় ফরম পূরণ করে চলে যান।

বিষয়টি যুবলীগ নেতাকে জানানো হলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে ওই টাকা ফেরত চান। এ সময় টাকা ফেরত দিতে দেরি হলে যুবলীগ নেতা রামকৃষ্ণ অফিসের কম্পিউটার ও চেয়ার টেবিল ভাঙচুর করে নগদ টাকা ছিনিয়ে নেয়ার পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র ছিঁড়ে ফেলেন। ওই যুবলীগ নেতার হাত থেকে আমাকে উদ্ধার করতে সহকারী প্রধান শিক্ষক আমিরুল ইসলাম এগিয়ে এলে তাকেও এলোপাথারী মারপিট করা হয়। তার মারপিটে ওই শিক্ষক সহ আমি আহত হই।

শিক্ষককে মারপিটের বিষয়ে ভবানীপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি রামকৃষ্ণের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।
উপজেলা যুবলীগের সভাপতি তারিকুল ইসলাম তারেক জানান, যুবলীগ নেতা রামকৃষ্ণ এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়ে থাকলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অপর দিকে এলাকাবাসী জানায়, রামকৃষ্ণ দাস মাদক দ্রব্য বাবসার সাথে জড়িত। সে নিজেও একজন নেশাখোর, ইতিপূর্বে ইয়াবা ট্যবলেট সহ শেরপুর থানা পুলিশের হাতে ধরা পড়লেও মোটা উৎকোসের মাধ্যমে ছাড়া পায়। থানায় রামের বিরুদ্ধে একাধীক অভিযোগ থাকলেও সরকার দলীয় দাপটে তাকে গ্রেফতার করা হয়না বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

শেরপুর থানার ওসি খান মো: এরফান জানান, রাতে শিক্ষক পেটানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। আসামি ধরার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.