বগুড়ার শেরপুরে ৮১০ কেজি চাউল পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার

05 শেরপুর(বগুড়া) প্রতিনিধি: হতদরিদ্রদের জন্য বিক্রয়যোগ্য ১০টাকা কেজি’র সরকারী চাউল কালো বাজারের বিক্রয়ে জন্য রক্ষিত অবস্থায় পরিত্যক্ত দুটি ঘর থেকে উদ্ধার করলেন উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা একেএম সরোয়ার জাহান। ঘটনাটি  শুক্রবার(১১ নভেম্বর) বগুড়ার শেরপুর উপজেলার খানপুর ইউনিয়ন পরিষদের এলাকায় ঘটেছে। তবে এ ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

জানা যায়, উপজেলার খানপুর ইউনিয়ন পরিষদের পার্শ্বে ১১ নভেম্বর শুক্রবার সকাল থেকে জনৈক খাদ্য ডিলার রাজু আহম্মেদ ১০ টাকা কেজি দরে ৩০ কেজি বিতরণ করছিলেন। এসময় হতদরিদ্রদের কাছ থেকে কার্ড ৬’শ/৭’শ টাকায় কিনে নিয়ে কালো বাজারের বিক্রির জন্য রক্ষিত করেন কতিপয় কালোবাজারীরা একই এলাকার নুরু তালুকদারের ছেলে কাদের আলী’র মনহারি দোকান ও ফজর আলীর ছেলে ফরহাদ হোসেন ভাড়াটে রিক্সা গ্যারেজের দোকানে। খবর পেয়ে বেলা ১০টার দিকে শেরপুর উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা একেএম সরোয়ার জাহান ঘটনাস্থলে গেলে কালোবাজারীরা দ্রুত পলায়ন করে।

পরে থানা পুলিশের উপ-পুলিশ পরিদর্শক শামসুজ্জোহা ও তার সঙ্গীয় ফোর্সের সহায়তায় দুটি পরিত্যক্ত দোকানগুলোতে অভিযান চালিয়ে মোট ৮১০ কেজি সরকারী চাউল ও ১৫টি খালি বস্তা জব্দ করে ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম রাঞ্জু’র জিম্মায় ইউনিয়ন পরিষদে রেখে আসেন। এসময় উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র বৈদ্য ও খাদ্য পরিদর্শক প্রনব সাহাসহ  গনমাধ্যমকর্মী  উপস্থিত ছিলেন। এ ঘটনার সময় কালোবাজারীরা পলায়ন করায়  কাউকে গ্রেফতার করতে পারা জানা যায়নি পুলিশ জানিয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা একেএম সরোয়ার জাহান বলেন, ১০ টাকা কেজি সরকারী চাউল কালোবাজারে বিক্রির অপচেষ্টা রুখতে এ অভিযান চালানো হয়। তবে চাউলগুলো উদ্ধার হলেও কালো বাজারীদের সনাক্ত পূর্বক প্রচলিত আইনে মামলা দায়ের করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.