সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীরদের দৌড় ঝাপ শুরু

05সিরাজগঞ্জ থেকে এইচ.এম মোকাদ্দেস: আগামী ২৮ডিসেম্বর সম্ভাব্য অনুষ্ঠিতব্য সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিবার্চন সামনে রেখে সরকার দলীসহ অন্যান্য দলের প্রভাবশালী নেতারা মাঠে সক্রিয় হয়ে উঠছেন। ইতিমধ্যে সরকার দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতারা দলের হাই কমান্ডের কাছে দৌড়-ঝাপ শুরু করেছেন এবং ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘূরছেন।

ইতিমধ্যেই প্রভাবশালী একাধিক প্রার্থী দলীয় মনোনয়ন পেতে কেন্দ্রীয় ও জেলার নেতাদের কাছে লবিং গ্রুফিং শুরু করেছেন। এদিকে, জেলা বিএনপি’র প্রচার সম্পাদক হারুনর রশীদ খান হাসান বলেন,সংবিধান অনুযায়ী জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটের মাধ্যমে নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা থাকলেও তা না করে নির্বাচন কমিশন সংবিধান পরিপন্থিভাবে নির্বাচন করতে চাচ্ছে।

এ নির্বাচনে বিএনপি’র কোন আগ্রহ নেই। এ কারনে  নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করা না করা বিষয়টি কেন্দ্রীয় নির্দেশনার অপেক্ষায় রয়েছেন বলে তিনি উল্লেখ করেন। এ নিবার্চনে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন, জেলা আ’লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্রশাসক সাবেক মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাস, শাহজাদপুর আসনের এমপি সাবেক উপমন্ত্রী হাসিবুর রহমান স্বপন, সাবেক এমপি চয়ন ইসলাম, সাবেক এমপি প্রকৌশলী তানভীর শাকিল জয়, , জেলা আ’লীগের সাবেক সাধারণ

সম্পাদক বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা এ্যাড. কে.এম হোসেন আলী হাসান এবং বাংলাদেশ মহিলা আ’লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক জান্নাত আরা তালুকদার হেনরী। এছাড়া জাতীয় পার্টির নেতা আমিনুল ইসলাম ঝন্টু, জেলা জাসদের সভাপতি বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাই তালুকদার, জেলা বাসদের সমন্বয়ক নব কুমার কর্মকার। এদের মধ্যে লবিং  এগিয়ে রয়েছেন, বর্তমান প্রশাসক এ্যাড. কে.এম হোসেন আলী হাসান।

বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনে এ ২ নেতা নিজ দলসহ বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানের সাথে সম্পৃক্ত থেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন জেলার গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক ও সমাজসেবক ব্যক্তিত্ব হিসেবে। মনোনয়ন প্রত্যাশী এ ২ নেতাই দাবি করেন আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি মনোনয়ন দিলে বিজয়ী হয়ে দলকে আরো প্রতিষ্ঠিত করবো। সেই সাথে জেলা পরিষদের উন্নয়নমুলক কর্মকান্ডকে জোরদার করা হবে এবং  নেতা-কর্মীসহ সাধারণ মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে কাজ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.