1. aknannu1964@gmail.com : AK Nannu : AK Nannu
  2. admin@asianbarta24.com : arifulweb :
  3. angelhome191@gmail.com : Mahbubul Mannan : Mahbubul Mannan
  4. info@asianbarta24.com : Dev Team : Dev Team
বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০১:০৭ অপরাহ্ন

সংকটের মুখে পাকিস্তান

  • আপডেট করা হয়েছে : রবিবার, ১৫ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ২৯ বার দেখা হয়েছে
মোঃ মজিবর রহমান শেখ,
 নগদ সঙ্কটের মুখোমুখি পাকিস্তানের অবিলম্বে সাহায্য প্রয়োজন পড়ছে। প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরীফ যখন তার চীনা প্রতিপক্ষ লি কেকিয়াং-এর কাছে সাহায্য চাইছেন, সেনাপ্রধান জেনারেল আসিম মুনির বর্তমানে সৌদি আরবে প্রতিরক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে ব্যস্ত। কিন্তু আর্থিক শৃঙ্খলাহীনতা ও দেশের অস্থিতিশীল রাজনীতিতে পাকিস্তানের রেকর্ডের কারণে সবাই হাত টানার চেষ্টা করছে। দেশের সরকারগুলো বৈদেশিক সাহায্য পাওয়ার ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ ব্যর্থ প্রমাণিত হয়েছে।
 অন্যদিকে, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলকে ও হতাশ করেছে পাকিস্তান।  আইএমএফ অর্থ অনুমোদন করছে না আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) থেকে এখন পর্যন্ত এক আনা ও তহবিল পায়নি পাকিস্তান। দেশটির অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছে আইএমএফের প্রতিনিধি দল। জানুয়ারিতে জেনেভায় অনুষ্ঠিতব্য একটি কর্মসূচির ফাঁকে এই বৈঠক হয়। আইএমএফের কাছ থেকে বেলআউট প্যাকেজ পেতে অনেক লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে পাকিস্তান। আইএমএফের কাছে ৬ বিলিয়ন ডলার সাহায্য চেয়েছিল পাকিস্তান। এখন পর্যন্ত এই সহায়তায় $১.১ বিলিয়ন অনুমোদন করা হয়নি। এই অর্থ নভেম্বরেই পাওয়ার কথা ছিল।
 কিছু পাকিস্তানি বুদ্ধিজীবীদের মতে, আইএমএফ কর্তৃক ১.১ বিলিয়ন ডলার রিলিজ শুধু দুর্নীতি বাড়াবে।  এই ব্যর্থ রাষ্ট্রটি তার সৃষ্টির পর থেকে ২২ বার আইএমএফের কাছে গেছে- প্রতি ৩-৪ বছরে ১ বার। সমস্ত অর্থ দুর্নীতিবাজ শাসক এবং সেনাবাহিনীর বিদেশের অ্যাকাউন্টে যাবে। পাকিস্তানে দরিদ্রদের দরিদ্র ও নিঃস্ব হিসাবে রাখার নীতি রয়েছে যাতে সেনাবাহিনী দ্বারা নির্মম শক্তির মাধ্যমে জনগণকে সহজেই শাসন করা যায়। তারা একটি সঠিক শিক্ষা ব্যবস্থা বা স্কুল গড়ে তোলেনি তাই দরিদ্র মানুষ মাদ্রাসায় যেতে বাধ্য হয়। পাকিস্তান বলকানাইজ না হওয়া পর্যন্ত ১% নিজেদের সমৃদ্ধ করতে থাকবে। সবচেয়ে বড় সমস্যা পাকিস্তানের ট্র্যাক রেকর্ড এবং আইএমএফ এতে খুশি নয়। আইএমএফ থেকে ঋণের নতুন কিস্তি বন্ধ রয়েছে। সংগঠনটির পক্ষ থেকে ঋণ নেওয়ার যে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল, তা পূরণ করতে পারেনি বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। সংস্থাটি পাকিস্তানের কাছ থেকে শক্তির দাম বৃদ্ধি থেকে শুরু করে নতুন কর এবং বিনিময় হার নিয়ন্ত্রণের প্রতিশ্রুতি চেয়েছিল। কিন্তু তাতে ব্যর্থ হয়েছে পাকিস্তান। আইএমএফ প্রধানের সঙ্গে বৈঠকে সংগঠনের দাবিতে কিছুটা স্বস্তি চেয়েছিলেন শাহবাজ। তিনি বিশ্বাস করতেন, বিদ্যুতের দাম অনেক বেড়েছে এবং বিদ্যুতের দাম বাড়ানো সম্ভব নয়।  পাকিস্তানে মূল্যস্ফীতি পিঠ ভাঙছে।
ডিসেম্বরে মূল্যস্ফীতির হার ২৪,৫  শতাংশে পৌঁছেছিল। খাদ্যদ্রব্যের দাম বৃদ্ধির কারণে মূল্যস্ফীতি এত বেড়েছে। গ্রামাঞ্চলে অবস্থা ছিল আরও খারাপ। এখানে মুদ্রাস্ফীতির হার ছিল ২৮.৮ শতাংশ যেখানে শহরগুলিতে তা দাঁড়িয়েছে ২১.৬ শতাংশে। শহরে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৪১৫ শতাংশ এবং গ্রামে ৪৬৪ শতাংশ। গত এক বছরের তুলনায় চায়ের দাম বেড়েছে ৬৪ শতাংশে। গম এখন সাধারণ পাকিস্তানিদের নাগালের বাইরে। এক বছরে গমের দাম বেড়েছে ৫৭ শতাংশ, আটার দাম বেড়েছে ৪১ শতাংশ।
 শুধু তাই নয়, পাকিস্তানের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভও আট বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়ে পৌঁছেছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মতে, বর্তমানে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৫.৬ বিলিয়ন ডলারে রয়েছে এবং এটি দেশের জন্য সবচেয়ে গুরুতর পরিস্থিতি। দেশে মাত্র তিন সপ্তাহের রপ্তানির জন্য টাকা বাকি আছে। এই সংকটের মধ্যে পাকিস্তানকে বৈদেশিক ঋণ হিসেবে ৮.৩ বিলিয়ন ডলার পরিশোধ করতে হয়েছে। মার্কিন ডলারের বিপরীতে পাকিস্তানি রুপি ২৮০-এ পৌঁছেছে। বর্তমানে পাকিস্তানের সব আশা শুধু সৌদি আরবের ওপর। বৈদেশিক রিজার্ভ বাড়াতে এবং খেলাপি ঋন থেকে বেঁচে থাকা নিশ্চিত করতে পাকিস্তানের সৌদি অর্থের প্রয়োজন হচ্ছে।আগামী দিনে সৌদি আরব থেকে আরও ৩ বিলিয়ন ডলারের বেলআউট প্যাকেজ পাওয়ার আশা করছেন অর্থমন্ত্রী ইসহাক দার। সৌদি বাদশাহ সালমান পাকিস্তান কে কোন সাহায্য না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। একই সঙ্গে বিদেশে কিছু সম্পত্তি বিক্রি করে অর্থ সংগ্রহের আশা করছে পাকিস্তান।
লেখক; সাংবাদিক ও কলাম লেখক।

বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন

এরকম আরও বার্তা
স্বত্ব © ২০১৫-২০২২ এশিয়ান বার্তা  

কারিগরি সহযোগিতায় Pigeon Soft