1. aknannu1964@gmail.com : AK Nannu : AK Nannu
  2. admin@asianbarta24.com : arifulweb :
  3. angelhome191@gmail.com : Mahbubul Mannan : Mahbubul Mannan
  4. info@asianbarta24.com : Dev Team : Dev Team
মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০৩:৪২ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
জাতীয় শোক দিবসে বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের বিভিন্ন কর্মসূচি পালন রাজধানীর চকবাজারে পলিথিন কারখানায় আগুন নিয়ন্ত্রণে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নাটোরের কলেজ শিক্ষিকার মৃত্যুর নেপথ্যে উদঘাটন যারা আন্দোলন করছে তাদের কাউকে যেন গ্রেফতার করা না হয়: প্রধানমন্ত্রী কলেজছাত্রকে বিয়ে করা নাটোরের সেই শিক্ষিকার মরদেহ উদ্ধার জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প ও ঔষধ বিতরণ গোপালগঞ্জে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের ৭টি উন্নয়ন প্রকল্প পরিদর্শণ করেছেন এলজিইডি’র প্রধান প্রকৌশলী নওগাঁর মহাদেবপুরে প্রাইভেট কার খাদে পড়ে স্বামী ও অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী নিহত নলডাঙ্গায় মোটরসাইকেল ও সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ২

পলাশবাড়িতে ভূমিদস্যু শ্যামলীর ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে একটি পরিবার(গাইবান্ধার ৪টা সংবাদ)

  • আপডেট করা হয়েছে : রবিবার, ২৪ জুলাই, ২০২২

গাইবান্ধা প্রতিনিধি
গাইবান্ধার পলাশবাড়িতে শ্যামলী আকতারের ভয়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে বেড়াচ্ছে একটি পরিবার। ভুক্তভোগী পরিবারটি প্রশাসনের সকল পর্যায়সহ বিভিন্ন মহলের দ্বারস্থ হয়েও কোন সহযোগিতা পাচ্ছে না। পরিবারটি গতকাল শনিবার গাইবান্ধা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে তাদের অসহায়ত্ব তুলে ধরে প্রতিকার দাবি করেন।

ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন তৌফিকুল হাসান রিফাত। সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করা হয়, তিনি পলাশবাড়ি পৌরসভার নুনিয়াগাড়ির গ্রামের মৃত আফতাব হোসেনের ছেলে। প্রভাবশালী, ভূমিদস্যু শ্যামলী আক্তার তার প্রতিবেশী। এই শ্যামলী আকতার মামলাবাজ। সে বিভিন্ন সময়ে রিফাতের পরিবারসহ অন্যান্যদের নামে প্রায় ৫০টি মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে। মামলাগুলোর মধ্যে ২৮টি মামলা খারিজ হলেও ২২টি মামলা আজও বিদ্যমান।

গত ৩১মে শ্যামলী আকতারের নেতৃত্বে তার সন্ত্রাসী দলবল রিফাতের ৬ শতক জমি দখল করে টিনের চালা ওঠায়। গত ১৩ জুলাই রিফাত তার বাবার কবরের পাশে একটি মেহগনি গাছ কাটতে গেলে শ্যামলী আকতার ও তার লোকজন বাধা দেয়। এ ঘটনায় তার বড় ভাই তুফানসহ সাধারণ ডায়রী করার জন্য থানায় যাওয়ার পথে পলাশবাড়ী চৌরাস্তায় শ্যামলী আকতারের নেতৃত্বে সন্ত্রাসী বাহিনী তাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এতে তৌফিকুল হাসান রিফাত ও তার ভাই তুফান গুরুতর আহত হন। এ ঘটনায় পলাশবাড়ি থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। কিন্তু আসামিদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় বর্তমানে তারা চরম নিরাপত্তাহীন হয়ে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে।
তৌফিকুল হাসান রিফাত জানান, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, পলাশবাড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান, মেয়র, উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে রিফাতের বিধবা মা রিজিয়া বেওয়া উপস্থিত ছিলেন।

সাদুল্যাপুরে সাইডবোর্ড লাগিয়ে মসজিদের
প্রকল্প আত্মসাতের অভিযোগ
গাইবান্ধা প্রতিনিধি
মসজিদের পাশে প্রকল্প বাস্তবায়নের সাইনবোর্ড লাগানো হয়েছে। কিন্তু মসজিদের কোনো কাজ করা হয়নি। বরাদ্দ করা পুরো টাকাই আত্মসাৎ করা হয়েছে। মসজিদ কমিটির কোষাধ্যক্ষ মোস্তাফিজার রহমান এ অভিযোগ করে বিচার দাবি করেছেন। ঘটনাটি গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার কামারপাড়া ইউনিয়নের পূর্বকেশালীডাঙ্গা গ্রামে।

লিখিত অভিযোগে জানা যায়, ২০২১-২০২২ অর্থ বছরে গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার কামারপাড়া ইউনিয়নের পূর্বকেশালীডাঙ্গা দাসের ভিটা জামে মসজিদের মাঠ ভরাট ও স্টেশনের পূর্ব পাশে কলেজ রোড সংস্কারের জন্য ২ লাখ ৮৮ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। প্রকল্পের সভাপতি করা হয় ইউনিয়নের মহিলা সদস্য আমেনা বেগমকে। কিন্তু মসজিদের কোনো কাজ না করে টাকা উত্তোলন করে সমুদয় টাকা আত্মসাৎ করা হয়। পরে সেখানে প্রকল্প বাস্তবায়নের একটি সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দেয়া হয়। প্রকল্পের সাইনবোর্ডে কাজ শুরুর তারিখ উল্লেখ করা হয় ১৪.৫.২০২২খ্রি.। ঘটনাজেনে মসজিদ কমিটির লোকজন ও মুসল্লিরা আমেনা বেগমের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি সাফ জানিয়ে দেন কাজ শেষ হয়ে গেছে, আর কোনো কাজ হবে না।

মসজিদ কমিটির কোষাধ্যক্ষ মোস্তাফিজার রহমান ও মুসল্লিরা আরও জানান, মসজিদের মাঠ ভরাট করা তো দূরের কথা, মসজিদে এক কোদাল মাটিও কাটা হয়নি। আমরা টাকা আত্মসাতের বিচার চাই।
এ ব্যাপারে ওয়ার্ড মেম্বর আব্দুস সালাম ও প্রকল্প কমিটির সভাপতি আমেনা বেগম মোবাইল ফোনে বলেন, মাটি পাওয়া যায়নি জন্যে মসজিদের মাঠে মাটি ভরাট করা হয়নি। সাদুল্যাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার রোকসানা বেগম বলেন, তিনি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।


মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে গাইবান্ধায় সংবাদ সম্মেলন

গাইবান্ধা প্রতিনিধি
গাইবান্ধা জেলা প্রশাসন ও জেলা মৎস্য দপ্তরের আয়োজনে গতকাল শনিবার জেলা মৎস্য অফিস কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে স্থানীয় প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা অংশ নেন। সংবাদ সম্মেলনে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. ফয়সাল আজম সপ্তাহব্যাপী এই কর্মসূচির বিস্তারিত সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন। সাংবাদিক সম্মেলনে গাইবান্ধা জেলা মৎস্য বিভাগের আওতায় আধুনিক পদ্ধতিতে মাছ চাষের বিভিন্ন কার্যক্রম তুলে ধরা হয়।
সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. ওয়াহেদুজ্জামান, নাইমুল হাসান নান্নু, মো. সাজু মিয়া, সত্যনাথ দাস, শিপন মিয়া প্রমুখ। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে আজ রোববার জেলা শহরে বর্ণাঢ্য র‌্যালী, উদ্বোধনী অনুষ্ঠান এবং মৎস্য অবমুক্তকরণ রয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন জাতীয় সংসদের হুইপ মাহাবুব আরা বেগম গিনি এমপি। আগামী ২৯ জুলাই পর্যন্ত পোনা মাছ অবমুক্তকরণ, আলোচনা সভা এবং প্রচার প্রচারণা অব্যাহত থাকবে।
সম্মেলনে জানানো হয়, গাইবান্ধা জেলায় ৩৫ হাজার ৭৬০ মে. টন মাছ উৎপাদন হয়। অথচ চাহিদা রয়েছে ৪৮ হাজার ৬৩১ মে. টন। ঘাটতি ১২ হাজার ৮৭১ মে. টন মাছ পূরণ করার জন্য মৎস্য চাষীদের মধ্যে উৎসাহের সৃষ্টি করা হচ্ছে।


সাঁওতাল নেত্রী দ্রৌপদী মুর্মু ভাতৃপ্রতীম ভারতের রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হওয়ায়
গাইবান্ধায় সাঁওতালদের আনন্দ শোভাযাত্রা নাচ-গান ও মিষ্টি বিতরণ
গাইবান্ধা প্রতিনিধি
সাঁওতাল নেত্রী দ্রৌপদী মুর্মু ভাতৃপ্রতীম ভারতের রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হওয়ায় গাইবান্ধা নাট্য ও সাংস্কৃতিক সংস্থা চত্বরে গতকাল শনিবার আনন্দ শোভাযাত্রা, গান ও নৃত্যানুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। শুরুতে সাঁওতালরা তাদের ঐতিহ্যবাহী পোশাক, বাদ্যযন্ত্র ও তীর-ধনুক নিয়ে শোভাযাত্রাটি ২নং রেলগেট থেকে শুরু করে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে গাইবান্ধা গানাসাস চত্বরে মিলিত হয়ে গান ও নৃত্য পরিবেশন করেন। অনুষ্ঠান শেষে উপস্থিত সবার মাঝে মিষ্টি বিতরণ করা হয়। সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটি, আদিবাসী-বাঙালি সংহতি পরিষদ, সামাজিক সংগ্রাম পরিষদ ও জনউদ্যোগের আয়োজন করে।
সাহেবগঞ্জ বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটির সভাপতি ডা. ফিলিমন বাস্কের সভাপতিত্বে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন আদিবাসী-বাঙালি সংহতি পরিষদের আহবায়ক ও গাইবান্ধা জেলা বার এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সিরাজুল ইসলাম বাবু, অবলম্বনের নির্বাহী পরিচালক ও জনউদ্যোগের সদস্য সচিব প্রবীর চক্রবর্তী, সাঁওতাল নেত্রী প্রিসিলা মুর্মু, সামাজিক সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক জাহাঙ্গীর কবির তনু, সাঁওতাল নেতা সুফল হেমব্রম, কমল মুর্মু, সাঁওতাল নেত্রী তৃষ্ণা মুর্মু প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, সাঁওতাল নেত্রী দ্রৌপদী মুর্মু ভাতৃপ্রতীম ভারতের রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হওয়ায় গাইবান্ধা জেলায় বসবাসরত সাঁওতালরা গর্বিত ও আনন্দিত। এর মধ্য দিয়ে সাঁওতালসহ পিছিয়ে পড়া প্রান্তিক জনগোষ্ঠী তাদের অধিকার ও মর্যাদা রক্ষায় আরো উৎসাহিত ও সক্রিয় ভূমিকা পালন করবে। এসডিজি বাস্তবায়নে ভাতৃপ্রতীম দুটি দেশ একসাথে কাজের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

এরকম আরও বার্তা
স্বত্ব © ২০১৫-২০২২ এশিয়ান বার্তা  

কারিগরি সহযোগিতায় Pigeon Soft